তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল
আন্দোলনের এখনই সময়
Published : Thursday, 14 January, 2021 at 12:00 AM, Update: 13.01.2021 10:12:12 PM
আন্দোলনের এখনই সময়রফিক মৃধা, দিনকাল
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা-হুলিয়া দিয়ে গণতন্ত্রের কোনো আন্দোলন দমানো যাবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বুধবার দুপুরে এক মানববন্ধনে তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন। এ সময় তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে কোনো আইনের শাসন নেই। সরকার বিচার বিভাগকে শেষ করে দিয়েছে। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা তুলে নিতে হবে। জনগণকে উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, গণতন্ত্র রক্ষায় ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিবাদ-লড়াই করার সময় এসেছে। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা ‘ভুয়া-বানোয়াট-মিথ্যা’ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে এই মানববন্ধন হয়। এতে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী তারেক রহমানের ছবি সংবলিত ফেস্টুুন নিয়ে সমবেত হয়। কেন্দ্রীয় এই কর্মসূচির পাশাপাশি সারাদেশে জেলা ও মহানগরে একযোগে এই কর্মসূচি করছে বিএনপি।
প্রতিবাদ সমাবেশে সেøাগানে উত্তাল প্রেসক্লাব : দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ‘ভুয়া-বানোয়াট-মিথ্যা’ রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় অভিযোগ গঠন ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে রাজধানীসহ সারা দেশে জেলা ও মহানগরে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে গতকাল বুধবার সকাল ১০টা থেকে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দ?ক্ষিণ বিএন?পির উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি শুরু হয়। কর্মসূচিকে ঘিরে সকাল থেকেই দলে দলে নেতাকর্মীরা জাতীয় প্রেসক্লাব অভিমুখে আসতে থাকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নেতাকর্মীদের উপস্থিতিও বাড়ে। ছোট ছোট মি?ছিল নিয়েও মানববন্ধ?নে অংশগ্রহ?ণের জন?্য রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা আসে?। মানববন্ধন কর্মসূচিকে ঘিরে সেøাগানে সেøাগানে উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা প্রেসক্লাব এলাকা। মানববন্ধন থেকে এক কণ্ঠে আওয়াজ তোলেন নেতাকর্মীরা। সেøাগান আসছে- ‘জিয়া জিয়া’, ‘শহীদ জিয়ার বাংলায় অপরাধীর ঠাঁই নাই’, ‘খালেদা জিয়া বন্দি কেন জবাব চাই জবাব চাই’, ‘তারেক রহমান ভয় নেই, বাংলাদেশ তোমার সাথে’, ‘তারেক রহমান বীরের বেশে আসবে ফিরে বাংলাদেশে’।
মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে এবং গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে তা নতুন কোনো ঘটনা নয়। এদেশে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার জন্য এই সরকার অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে প্রায় ১২ বছর ধরে এখানে অত্যাচার-নিপীড়ন-নির্যাতনের একটা স্টিমরোলার চালিয়ে যাচ্ছে। তারা মনে করছে যে, এই অত্যাচার-নির্যাতন-মামলা-হুলিয়া দিয়ে এদেশের মানুষকে দমন করে রাখা যাবে কিন্তু তা সম্ভব নয়। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, তারেক রহমান সাহেব একা নন। এই দেশের ১৬ কোটি স্বাধীনতাকামী, গণতন্ত্রকামী মানুষ আজকে তার (তারেক রহমান) সঙ্গে আছে। সুতরাং এই মিথ্যা মামলা দিয়ে, হুলিয়া দিয়ে গণতন্ত্রের কোনো আন্দোলনকে দমন করা যাবে না।
তিনি বলেন, এই সরকার গণবিরোধী সরকার, এই সরকার জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থা নিয়েছে, গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এরা অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের সমস্ত প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। এজন্যে এখন এই সরকারকে সরানোর জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আজকে বাংলাদেশের সমস্ত গণতন্ত্রকামী মানুষ, দেশপ্রেমিক মানুষ তাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এদেরকে পরাজিত করতে হবে। আসুন আজকে এই সমাবেশের মধ্য দিয়ে আমরা জনগণের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দেই যে, এখন আজকে সময় এসেছে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হবার, সময় এসেছে আজকে প্রতিবাদ করবার, সময় এসেছে আজকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, সত্যের পক্ষে, ন্যায়ের পক্ষে লড়াই করবার। আসুন আমরা সবাই সেই লড়াইয়ে অংশ গ্রহণ করি।
একই সঙ্গে সরকারের প্রতি আহবান রেখে তিনি বলেন, আমাদের দেশনায়ক তারেক রহমান যার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার হুলিয়া দেয়া হয়েছে তার সমস্ত মামলার হুলিয়া তুলে নিতে হবে, ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে যে মামলা দেয়া হয়েছে সেসব মামলা তুলে নিতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে যে মিথ্যা মামলায় আটক করে রাখা হয়েছে তাকে মুক্তি দিতে হবে এবং সকল আটককৃত রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে মুক্তি দিতে হবে।
মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে তারেক রহমান সাহেবকে এতো ভয় কেনো? ভয়ের একটাই কারণ তারেক রহমান সাহেব এদেশের মানুষের যে রাজনীতি সেই রাজনীতির পতাকা তুলে ধরেছেন। সেই পতাকা নিয়ে এসেছিলেন শহীদ প্রেসিডেন্টে জিয়াউর রহমান ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা ঘোষণার মধ্য দিয়ে এবং সেই পতাকাকে তুলে ধরেছিলেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রকে রক্ষা করবার মধ্য দিয়ে। আজকে সেজন্যই এতো ভয় তাদের তারেক রহমান সাহেবকে নিয়ে। বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রামী মানুষ, বাংলাদেশের মানুষ যুদ্ধ করে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, বাংলাদেশের মানুষ গণতন্ত্রের জন্য বুকের রক্ত ঢেলে দিয়ে সংগ্রাম করেছে এবং বাংলাদেশের মানুষ প্রয়োজনে তাদের বুকের রক্ত দিয়েও গণতন্ত্রকে রক্ষা করবে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, আপনারা (সরকার) তো বিচার বিভাগকে শেষ করে দিয়েছেন। এই বিচার বিভাগের আর কোনো মর্যাদা আপনারা রাখেননি। তারেক রহমান সাহেবকে একটা মামলাতে পুরোপুরিভাবে নির্দোষ ও খালাস দেয়া হয়েছিলো। পরবর্তীকালে আবার সেই মামলাকে আপনারা হাইকোর্টে নিয়ে সাজা দেবার ব্যবস্থা করেছেন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে তাকে আপনারা সাজা দেবার ব্যবস্থা করেছেন। দেশে কোনো আইনের শাসন এখন নেই।
ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আপনারা চুরি এবং লুটপাট করে একটা ডাকাতির রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেছেন এই বাংলাদেশে। এই যে কোভিড-১৯ আজকে এতো বড় ভায়াবহ একটি মহামারি, এই মহামারিতে আপনারা লুটপাট বন্ধ করেননি। আরো কিভাবে লুটপাট করবেন-এখন ভ্যাকসিন আমদানির মধ্য দিয়ে লুটপাটের ষড়যন্ত্র করছেন। যেখানে ভ্যাকসিন ভারতে বিক্রি করছে ২ টাকা ৪০ পয়সা করে, সেখানে আপনারা বিক্রি করবেন ৫ টাকা করে বাংলাদেশের মানুষের কাছে। অর্থাৎ এই টাকা সম্পূর্ণ আপনারা নিয়ে যাবেন।
বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, আমাদের বুঝতে হবে, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি এটা শেষ কথা নয়। আমরা যদি গণতন্ত্র উদ্ধার করতে পারি হামলা-মামলা-হুলিয়া কোনো কিছুই থাকবে না, আমরা যদি গণতন্ত্র উদ্ধার করতে চাই, তাহলে অবশ্যই গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, যার হাতে গণতন্ত্র গুম হয়েছে, খুন হয়েছে সেই সরকারকে আমাদেরকে বিতাড়িত করতে হবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা থেকে। আর তাকে যদি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা থেকে বিতাড়িত করতে পারি তাহলে দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী যে শক্তি, সেই শক্তি একটি আশা পাবে, প্রত্যাশা পাবে। যে স্বাধীনতার সুফল যে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা, শোষণহীন সমাজ ব্যবস্থা এবং আইনের শাসন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা সব কিছুই একটি নিয়মের মধ্যে আসবে।
তিনি বলেন, আজকে আদালত বলুন, বিচার বিভাগ বলুন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলুন, যত বাহিনী আছে সব বাহিনী একজনের হাতের মুঠায়। এই কর্তৃত্ববাদী সরকার ভিন দেশীদের দাসত্ব গ্রহণ করে আজকে ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করা এবং দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে দেশটাকে আগের মতো তলাবিহীন ঝুড়ি বানানোর একটি পাঁয়তারা চলছে। তাই আমাদের একটি-দুইটি মামলার প্রতিবাদ করে ক্ষান্ত হলে চলবে না, একটি সমাবেশের মধ্য দিয়ে আত্মতৃপ্তি প্রকাশ করলে চলবে না। জনগণ প্রস্তুত আছে। আমাদের কথার চেয়ে কাজ দরকার বেশি। জনগণ চায় আমরা রাস্তায় নামি। জনগণ আমাদের সাথে নামবে। সুতরাং এই মুহূর্তে থেকে আমাদের প্রস্তুতি নেয়া দরকার। সে কারণে দলকে ঐক্যবদ্ধ করার মধ্য দিয়ে পাড়ায়-মহল্লা-গ্রাম-গঞ্জে যে যেখানে আছেন তাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করুন। ঐক্যের ডাক দিয়ে বলুন-‘এক দফা এক দাবি, হাসিনা তুই করে যাবি’।
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, প্রধানমন্ত্রী আপনাকে বলি, বিএনপি আপনাকে উৎখাৎ করতে চায় না। দেশের মানুষ আপনাকে চায় না। এদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তাকে ঠেকাবেন কি করে? তারেক রহমান তো পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী-এটা মনে রাখেন না কেনো? এই দেশে বাংলাদেশিরা থাকবে, এই দেশে মুক্তিযোদ্ধারা থাকবে, এদেশে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার সৈনিকেরা থাকবে। এর বাইরে কোনো দেশের দালাল-টালাল থাকবে না।
তিনি বলেন, তারেক রহমান সাহেব প্রতিহিংসা করেন না। তিনি অত্যন্ত জ্ঞানী-গুনি একজন মানুষ। ইতিমধ্যে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন। আইনের ওপরে তিনি বিশেষজ্ঞ পর্যায়ের লোক। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন, তারেক রহমান না হওয়ার কি আছে? দিন-তারিখ দেবো না। তবে এই বছরের ভেতরে আপনি (পেছনে বলছিলো গুছাতে পারেন), কোনো অসুবিধা নাই। তারেক রহমান সাহেব এদেশে আসবে। গণতন্ত্রের জন্য আসবে, স্বাধীনতার জন্য আসবে, কৃষকদের জন্য আসবে, শ্রমিকের জন্য আসবে, মেহনতি মানুষের জন্য আসবে। ঠেকাবেন কিভাবে? এই সব মামলা-টামলা করে লাভ নেই। আপনাদের পার্টি যখন ডাকবে- যে যেখানে থাকবেন যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে আমরা রাস্তায় নেমে আসবো গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্যে, স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার জন্যে।
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান বলেন,  এই প্রতিবাদ সভা থেকে আমরা বলতে চাই, অবৈধ প্রধানমন্ত্রী, ভোট ডাকাতির প্রধানমন্ত্রী এবং জনগণের ?মুখে মুখে চোর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবিলম্বে তুমি (শেখ হাসিনা) ক্ষমতা হস্তান্তর করো, নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করো। তারপরে বাংলাদেশে নির্বাচন হবে। যদি তুমি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করো, নব্বইয়ের আন্দোলনের চেতনায় বাংলাদেশে আরেকটি গণঅভ্যুত্থান সৃষ্টি করার মধ্য দিয়ে হাসিনাকে বাংলাদেশের রাষ্ট্র ক্ষমতা থেকে আমরা অবশ্যই সরাবো ইনশাল্লাহ।
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, জিয়া পরিবারের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর এতো প্রতিহিংসা কেনো? ওনার প্রতিহিংসা থামবে না। বাজ পাথির মতো, ঈগলের মতো প্রতিহিংসার পাখা ওনার ঝটপট ঝটপট করে সবসময়। আরে ভাই, এতো গুম করলাম, এতো খুন করলাম, এতো বিচারবহির্ভূত হত্যা, এতো মামলা তারপরেও বিএনপির নেতারা পিঁপড়ার গর্তের মধ্য থেকে যেমন পিঁপড়া লাখে লাখে দাঁড়ায়, বিএনপির নেতা-কর্মীরা গর্তের ভেতরে থেকে কি করে লাখে লাখে বের হয়? মামলা-গুম-খুনে দমানো যাবে না বিএনপিকে।
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, তারেক রহমানের নামের আগে কোনও বিশেষণের প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই সরকারের নামের পরে অনেক বিশেষণের দরকার আছে। আমরা যে কথাগুলো বলি বারবার, এই কথাগুলো তাদের মধ্যে থেকেই অনেক আগে থেকেই আলোচনা হচ্ছে।
তি?নি ব?লেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ভাই বলছেন, নির্বাচন নিয়ে টালবাহানা হচ্ছে, আওয়ামী লীগ ভোট চুরি করছে, লুটপাট করছে। আবার এদিকে সাঈদ খোকন বলছেন, তাপস চোর আর তাপস বলছেন, সাঈদ খোকন ডাকাত। এই যে তাদের নামে নতুন নতুন বিশেষণ যোগ হচ্ছে এগুলো তো আমরা করছি না, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই করছে।
বিএন?পির এই যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, বেগম খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে তারেক রহমানের নামে এই মামলা আমরা ফুলের মালা হিসাবে বরণ করে নিয়েছি। যতদিন বেঁচে থাকব এই মামলা কাঁধের মালা হিসাবে রাখ?বো এবং যতক্ষণ পর্যন্ত না আওয়ামী লীগের গলায় ফেরত দিতে পারব, ততদিন পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে ও দক্ষিণের কাজী আবুল বাশার ও উত্তরের আবদুল আলীম নকির পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নাজিম উদ্দিন আলম, মীর সরফত আলী সপু, আজিজুল বারী হেলাল, শিরিন সুলতানা, আবদুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, শামীমুর রহমান শামীম, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদ, জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের সদস্য সচিব হাসান জাফির তুহিন, জাসাসের সাধারণ সম্পাদক হেলাল খান, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুল রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, জাতীয়তাবাদী যুবদল ঢাকা মহানগর  উত্তরের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন প্রমুখ।
এছাড়াও সমাবেশে বিএনপি নেতা আবদুল খালেক, শিরিন সুলতানা, আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, আমিরুজ্জামান শিমুল, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, শেখ রবিউল আলম রবি, রাজীব আহসান, আকরামুল হাসান, মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, নবী উল্লাহ নবী, জাতীয়তাবাদী যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নয়ন, যুবদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা হেলেন জেরিন খান, কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কৃষিবিদ মেহেদি হাসান পলাশ, মির মমিনুর রহমান সুজন, এম জাহাঙ্গীর আলম, শফিকুল ইসলাম শফিক, আরসাদুল আরিস ডল, হাজী সাখাওয়াত হোসেন নান্নু, হারুন সিকদার, আব্দুর রাজি, জাসাসের সহ-সভাপতি লেয়াকত আলী, শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন রোকন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম স্বপন, মো: হাবিবুর রহমান জসীম, মঞ্জু মিয়া, শাহ  মো: বেলাল হোসেন, বেলাল চৌধুরী, ইউসুফ আলী, শফিকুল ইসলাম রতন, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির যুৃগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম পারভেজ,সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন, রামপুরা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. রবিউল ইসলাম রবি, সাবেক কমিশনার মো. সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, পল্লবী থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বুলবুল আহমেদ, বংশাল থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মামুন, ১৬ নং ওয়ার্ড বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মান্নান, ১৬ নং ওয়ার্ড বিএনপি নেতা মো. নাসির, মো. আলী হোসেন, পল্লবী থানা বিএনপি নেতা আনিসুর রহমান, সরোয়ার তালুকদার, আহসান উল্লাহ বাবুল, আলিম মিরাজ, আক্তার হোসেন রূপনগর থানা বিএনপি নেতা এম আশরাফুল ইসলাম, আবদুল মান্নান, শাহ আলমসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
তারেক রহমানের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা। আড়াইহাজারে সুমনের নেতৃত্বে মানববন্ধন
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানের নামে মিডনাইট অবৈধ সরকারের আদালত কর্তৃক ফরমায়েশি রায় গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে আড়াইহাজার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহমুদুর রহমান সুমনের নেতৃত্বে সহস্রাধিক  নেতাকর্মী নিয়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত মঙ্গলবার আড?াইহাজার এলাকায় তারেক রহমানের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
এ সময় মানববন্ধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আড়াইহাজার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহমুদুর রহমান সুমন বলেন, দেশনায়ক তারেক রহমানকে এ অবৈধ সরকারের যত ভয়। কারণ এ সরকার জানে তারেক জিয়া দেশে এলে তাদের অবস্থান নড়ে যাবে। তাই তারা তারেক জিয়ার নামে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে যাচ্ছে ও আদালতকে ব্যবহার করে গ্রেফতারি পরোয়ানা বের করছে। কিন্তু এ দেশের মানুষ তা মানে না। এদেশের মানুষ এ রায়কে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে।
তিনি আরো বলেন, অবিলম্বে তারেক রহমান নামে মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রত্যাহার করা না হলে আগামীতে আরো কঠিনতম দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। তারেক রহমান বীরের বেশে এদেশে ফিরে আসবেন। তারেক রহমানের ডাকের অপেক্ষায় পুরো বাংলাদেশ। তার ডাকে আমরা আড?াইহাজার বিএনপি সর্বদা প্রস্তুত আছে।
এ সময় আড়াইহাজার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাশেম ফকিরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন আড?াইহাজার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহমুদুর  রহমান  সুমন। এছাড়া  উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা তোতা মেম্বার, গাজী মাসুদ, মঞ্জুরুল ইসলাম, মুজিবুর রহমান, যুবদল নেতা জহিরুল ইসলাম জহির, মীর রেজাউল করিম, মোকারম হোসেন পারভেজ, আলামিন মোল্লা, আলামিন খান,  আশরাফুল ইসলাম আশরাফ, সফিকুল ইসলাম, ছাত্রনেতা জুবায়ের রহমান জিকু, তুষার মোল্লা, রুহুল আমিন, রাসেল মিয়া প্রমুখ।
খুলনা : খুলনা ব্যুরো জানায়, দেশের ১৬ কোটি গণতন্ত্রকামী মানুষের হৃদয়ের স্পন্দনের নাম তারেক রহমান। মিথ্যা আর ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে তার জনপ্রিয়তা কমানো যাবে না। দেশের মানুষ আগামী নেতৃত্বে তারেক রহমানকে দেখতে চায়, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে সেই স্বপ্ন মুছে ফেলা যাবে না। মানুষ জানে বর্তমান মামলাবাজ সরকার দেশের ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে অর্থাৎ এদেশে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার জন্য এই সরকার অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে ১২ বছর যাবৎ নির্যাতনের স্টিম রোলার চালিয়ে যাচ্ছে। সরকার মনে করছে, এই অত্যাচার-নির্যাতন মামলার হুলিয়া দিয়ে এ দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষকে দমন করে রাখা যাবে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রামী মানুষ, বাংলাদেশের মানুষ যুদ্ধ করে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রাম করে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে গণতন্ত্রকে অর্জন করেছে এবং বাংলাদেশের মানুষ এবারো তাদের বুকের রক্ত দিয়ে এই গণতন্ত্রকে রক্ষা করবে।
গতকাল বুধবার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে কেডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে বেলা সাড়ে ১১টায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু উপরোক্ত মন্তব্য করেন।
মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন জেলা সভাপতি অ্যাড. শফিকুল আলম মনা, সাবেক মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, আমির এজাজ খান, শেখ মুশাররফ হোসেন, জাফরুল্লাহ খান সাচ্চু, শেখ ইকবাল হোসেন, শেখ আব্দুর রশিদ, এস এ রহমান বাবুল, শেখ আবু হোসেন বাবু, জি এম কামরুজ্জামান টুকু, রেহানা ইসা, অ্যাড. তছলিমা খাতুন ছন্দা, মেহেদী হাসান দিপু, শেখ সাদী, নাজমুল হুদা সাগর, অ্যাড. মশিউর রহমান নান্নু, আবু সাইদ শেখ, সাইমুল ইসলাম রাজ্জাক, হেমায়েত হোসেনসহ আরও অনেকে। আসাদুজ্জামান মুরাদ ও ওহিদুজ্জামান রানার পরিচালনায় মানববন্ধন কর্মসূচির শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন মাওলানা আব্দুল গফ্ফার।
রংপুর : স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নামে মিথ্যা মামলা, গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গতকাল বুধবার বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রংপুর মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি রুহুল আমিন বাবলু। বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম মিজু, রংপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রইস আহমেদ, মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, জেলার যুগ্ম সম্পাদক শরিফুল ইসলাম ডালেস, প্রচার সম্পাদক ফিরোজ আলম, মহানগরের সহ-প্রচার সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বিপু,  মিঠাপুকুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক গোলাম রব্বানী, যুগ্ম আহবায়ক শামীমুল ইসলাম, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শহীদুল ইসলাম লিটন, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আসাদুর রহমান জাহিদ, জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক আকিবুল ইসলাম মনু, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি নুর হাসান সুমন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মোকসেনুল আরেফীন রুবেল, মহানগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মুরাদ ইসলাম তিতু,  জেলা মৎস্যজীবী দলের আহবায়ক রজব  আলী সরকার, জেলা তাঁতী দলের আহবায়ক ফজলে এলাহী ডিউক, সদস্য সচিব মোঃ নাজিউর রহমান, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পদক আল ইমরান সুজন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত জীবন, মুনতাসির মামুন,  স্বেচ্ছাসেবক দলের এপোলো চৌধুরী, শ্রমিক দলের মনিরুল ইসলাম মিন্টু। বক্তাগণ অতিসত্বর তারেক রহমানের নামে মিথ্যা মামলাসহ গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবি জানান। অন্যথায় দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।
নরসিংদী : স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী জানান, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির সভাপতি খায়রুল কবির খোকন বলেন, সরকার তারেক রহমানের জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। শত শত মামলা দিয়ে আজ পর্যন্ত কোনো মামলা প্রমাণ করতে পারেনি। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে, ষড়যন্ত্র করে কোনো লাভ হবে না। কারণ তিনি এদেশের প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। আর এটিই বর্তমান ভোটারবিহীন, অবৈধ সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর আতঙ্কের কারণ।
গতকাল বুধবার দুপুরে জেলা বিএনপির উদ্যোগে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেছেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, শহর বিএনপির সভাপতি একেএম গোলাম কবির কামাল, সাধারণ সম্পাদক ফারুক উদ্দীন ভূইয়া, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আকবর হোসেন, দফতর সম্পাদক আমিনুল হক বাচ্চু, যুবদলের সভাপতি মহসিন হোসাইন বিদ্যুৎ, সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহেন শাহ শানু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোকারম ভূইয়া, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি ভি.পি নাসির, ছাত্রদলের সিদ্দিকুর রহমান নাহিদ প্রমুখ।   
নেত্রকোনা : নেত্রকোনা প্রতিনিধি  জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রদান ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে নেত্রকোনায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা।
 কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নেত্রকোনা জেলা বিএনপি বুধবার সকাল ১০টায় ছোট বাজারস্থ দলীয় কার্যালয়ে এই কর্মসূচি পালন করে।
 নেত্রকোনা জেলা বিএনপির আহবায়ক বিশিষ্ট অর্থপেডিক চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মো. আনোয়ারুল হকের সভাপতিত্বে যুগ্ম আহবায়ক তাজেজুল ইসলাম ফারাস সুজাতের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের তালুকদার, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক বজলুর রহমান পাঠান, পৌর বিএনপির আহবায়ক আব্দুল ওয়াহাব ভূঁইয়া,  জেলা কৃষক দলের সভাপতি সালাহ্উদ্দিন খান মিল্কী, জেলা তাঁতীদলের সভাপতি আজিজুল হক, পৌর বিএনপির সদস্য সচিব মোয়াজ্জেম হোসেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শাহাব উদ্দিন রিপন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আজহারুল ইসলাম কমল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোলায়মান হাসান রুবেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফুল আলম সবুজ, জেলা ওলামা দলের সদস্য সচিব মোঃ লুৎফুর রহমান, জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি এস এম দেলোয়ার হোসেন ও সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মোকশেদুল আলম রাজিব প্রমুখ।
জামালপুর : জামালপুর প্রতিনিধি জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন ও  গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে জামালপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি। গতকাল বুধবার দুপুরে স্টেশন রোডে বিএনপি  কার্যালয়ের সামনে এ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। জামালপুর জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে ও দফতর সম্পাদক মো. গোলাম রব্বানীর সঞ্চালনায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির ময়মনসিংহ বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ্ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন। সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হক খান দুলাল, খন্দকার আহসানুজ্জামান রুমেল, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম খান সজিব, সদর উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব রুহুল আমিন মিলন, বিএনপি নেতা শাহ্ মো. আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সোহেল রানা খান, জেলা মৎস্যজীবী দলের সভাপতি আব্দুল হালিম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।
হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় শহরের প্রধান সড়কের শায়েস্তানগর এলাকায় এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় ১ কিলোমিটার দীর্ঘ এই বিশাল মানববন্ধনে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢল নামে। এ সময় কিছু সময়ের জন্য প্রধান সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর আগে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন।
মানববন্ধনে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ জি কে গউছ বলেন, আওয়ামী লীগ একটি জনবিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক দল। রাজনৈতিকভাবে বিএনপিকে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে আওয়ামী লীগ পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবহার করছে। বিএনপি কোনো কর্মসূচি দিলেই পুলিশের অতিউৎসাহী কর্মকর্তারা বাধা সৃষ্টি করেন। কিন্তু তাদের জানা নেই, মামলা-হামলা করে বিএনপিকে রাজপথ থেকে সরানো যাবে না। প্রয়োজনে রাজপথে রক্ত দিয়ে হলেও বিএনপির কর্মসূচি পালন করা হবে।
মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট শামছু মিয়া চৌধুরী, অ্যাডভোকেট মঞ্জুর উদ্দিন শাহীন, অ্যাডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম, এম জি মোহিত, অ্যাডভোকেট এস এম বজলুর রহমান, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর মেয়র ফরিদ আহমেদ অলি, আজিজুর রহমান কাজল, নুরুল ইসলাম নানু, মহিবুল ইসলাম শাহীন, তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, মিয়া মোঃ ইলিয়াছ, জালাল আহমেদ, আকদ্দুস মিয়া বাবুল, তুষার আহমেদ চৌধুরী, হাজী লুৎফুর রহমান, মুজিবুল হক মারুফ, অ্যাডভোকেট এম এ কাদির, আব্দুল ওয়াদুদ তালুকদার আব্দাল, মিজানুর রহমান চৌধুরী, অ্যাডভোকেট ফাতেমা ইয়াসমিন, শাহ রাজীব আহমেদ রিংগন, এম হাফিজুল ইসলাম প্রমুখ।
টাঙ্গাইল : স্টাফ রিপোর্টার, টাঙ্গাইল জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা।
বুধবার সকালে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবালের নেতৃত্বে শহরের শান্তিকুঞ্জ মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হলে পুলিশি বাধায় তা প- হয়ে যায়। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
অবিলম্বে সরকারকে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিল করার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, তারেক রহমানই হচ্ছেন এদেশের আগামী দিনের রাষ্ট্রনায়ক। তিনি যেদিন এদেশে ফিরে আসবেন, সেদিনই এই সরকারের বিদায় ঘণ্টা বেজে যাবে। এজন্যই বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ওপর তাদের এতো ক্ষোভ, প্রতিহিংসা।
কুড়িগ্রাম : স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে ও মামলা বাতিলের দাবিতে কুড়িগ্রামে জেলা বিএনপির আয়োজনে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার দুপুরে কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। সমাবেশে এ সময় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম বেবু, সহ-সভাপতি জহুরুল আলম, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল হোসনাইন কায়কোবাদ, যুগ্ম সম্পাদক আশরাফুল হক রুবেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিস আলী, মোসলেম উদ্দিন মোল্লা দুলাল, অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আশরাফ আলী, কুটির শিল্প সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম রিপন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জামিল আহমেদ, সাংবাদিক রেজাউল করিম রেজা, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বিপ্লব, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নাদিম আহমেদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু দারদা হেলাল, রিজন সরকার, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আমিমুল ইহসান, যুগ্ম সম্পাদক সাওন, সোহেল রানা, আবু সাইদ শিথিলসহ জেলা বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
এ সময় বক্তারা বলেন ১/১১’র সরকার থেকে শুরু করে বর্তমান সরকার তারেক রহমানের নামে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়েরের মাধ্যমে তাকে হেয় করার চক্রান্ত করছে। বর্তমান সময়ে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি তারই অংশ বলে উল্লেখ করে অবিলম্বে মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিলের  দাবি করেন বক্তারা।
নোয়াখালী : নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান, আওয়ামী লীগ নেতার দায়ের করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে নোয়াখালীতে মানববন্ধন-সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।
বুধবার (১৩ জানুয়ারি) নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করে তারা।




মানববন্ধন-সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসি, শহর বিএনপির সভাপতি আবু নাছের, জেলা কৃষক দলের সভাপতি অ্যাড. রবিউল হাসান পলাশসহ অনেকে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রমাণ করে দেশে আইনের শাসন নেই। একটি দলকে নিশ্চিহ্ন করার উদ্দেশ্যে এ পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। তারা এই গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রত্যাহারের দাবি জানান।
উল্লেখ্য, গত ২০১৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. ওমর ফারুক বাদী হয়ে তারেক রহমানকে আসামি করে একটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়ের করেন। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সৈয়দ ফখরুল আবেদীন শুনানি শেষে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।
মাদারীপুর : মাদারীপুর প্রতিনিধি জানান, নোয়াখালী জেলা ও দায়রা জজ আদালত কর্তৃক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের প্রতিবাদে পুলিশি বাধার মুখেও মাদারীপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে মাদারীপুর জেলা বিএনপি বুধবার সকাল ১০টায় মাদারীপুর জেলা বিএনপির সদস্যসচিব জাহান্দার আলী জাহানের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম-আহবায়ক অ্যাড. জামিনুর হোসেন মিঠুর পরিচালনায় শহরের পুরান বাজারে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মাদারীপুর জেলা বিএনপির সদস্য ও সদর উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক গাউছ-উর রহমান, জেলা যুবদলের সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন খান মফা, সাধারণ সম্পাদক মো









প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ইসি, প্রশাসন ও আ’লীগ মিলে চট্টগ্রামে ভোট ডাকাতি করেছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা