চরম বিশৃঙ্খলে চিকিৎসা খাত
Published : Friday, 5 June, 2020 at 12:00 AM, Update: 04.06.2020 9:27:14 PM
দিনকাল রিপোর্ট
সরকারি হাসপাতালে শয্যা খালি নেই। নেই পর্যাপ্ত আইসিইউ ও অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা। বেসরকারি হাসপাতালগুলোর দরজা বন্ধ। চিকিৎসকেরা চেম্বারে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন না। কোভিড-১৯ ও নন-কোভিড রোগীরা চিকিৎসার জন্য হাহাকার করছেন। চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুর খবর আসছে প্রতিনিয়ত। সংক্রমণ পরীক্ষার জন্য নমুনা দিতে এবং ফলাফল পেতে পোহাতে হচ্ছে বিড়ম্বনা। শনাক্তের আগ্রেই উপসর্গ্র নিয়ে মৃত্যু বাড়ছে।
চিকিৎসকরা বলছেন, ‘হাসপাতালে সিট খালি নেই। আইসিইউতেও খালি নেই। অনেককে চাইলেও আমরা আইসিইউ সাপোর্ট দিতে পারছি না। নাই ভেন্টিলেটর ব্যবস্থাও। করোনা চিকিৎসায় সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন অক্সিজেন, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর ব্যবস্থা যা বাংলাদেশে খুবই অপ্রতুল।
এদিকে কী সরকারি, কী বেসরকারি হাসপাতাল। অক্সিজেন সংকট সবখানে। অথচ রোগীকে বাঁচাতে হলে প্রয়োজন অক্সিজেনের। স্বজন, চিকিৎসক সবাই অসহায়। এক সময় চোখের সামনেই অক্সিজেনের অভাবে শ্বাস বন্ধ হয়ে যায়। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন রোগী। দেশে করোনাকালে হাসপাতালগুলোর চিত্র এমনই। এমনিতেই করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীদের বেশিরভাগই শ্বাসকষ্টে ভোগেন। করোনা আক্রান্ত এমন রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি করতে গলদঘর্ম হতে হয়। বেসরকারি হাসপাতালগুলো এক্ষেত্রে বেশ সজাগ। করোনা রোগীদের ভর্তি করাতে তাদের অনীহা। সরকারি হাসপাতালগুলোও কম নয়। কাশি, সর্দি, গলাব্যথা হলেও কেউ হাসপাতালে যেতে চান না। কিন্তু সমস্যা দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট দেখা দিলেই। এমন রোগীকে নিয়ে স্বজনরা ছোটেন হাসপাতালের উদ্দেশ্যে। কিন্তু এক এক করে কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরেও ভর্তি করানো সম্ভব হয় না। এমন অনেকেই অ্যাম্বু^ুলেন্সেই মারা গেছেন। আর যারা হাসপাতালে ভর্তি হতে পেরেছেন তাদের অক্সিজেনের জন্য যুদ্ধে নামতে হয়। রোগী অনুযায়ী আইসিইউ সিট সংখ্যা কম। আবার অক্সিজেনের সিলিন্ডারও কম। কোথাও কোথাও সেন্ট্রাল অক্সিজেনের ব্যবস্থা থাকলেও সেখানে ভর্তি করানো কঠিন। সিট নেই। এ অবস্থায় অক্সিজেনের জন্য কান্না দিন দিন ভারী হচ্ছে। লাশের সারি হচ্ছে দীর্ঘ।
অক্সিজেন জীবন বাঁচাতে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য এ এক মহা উপায়। যা মুমূর্ষু করোনা রোগীদের দেয়া হয়। হাসপাতাল থেকেই সরবরাহ করা হয় এ অক্সিজেন। অথচ বর্তমানে চরম সংকট এই বায়ুর। মূল্যবান জীবন বাঁচানোর এই কৃত্রিম বায়ু এখন স্বর্ণের চেয়েও দামি। চট্টগ্র্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এরকম চিত্র বর্ণনা করেছেন একজন চিকিৎসক। বলেছেন, সেখানে একশ’ জনেরও বেশি রোগী রয়েছে। বেশিরভাগ রোগীরই অক্সিজেন দরকার। তাও মিনিটে ১৫ লিটার করে। এর মধ্যে যারা ১৮টি পোর্টের কাছাকাছি বেডে ফোরিং করছেন, তারা একটা পোর্ট থেকে চার-পাঁচজন করে অক্সিজেন নিচ্ছেন। বাকি রোগীরা ছটফট করছেন। যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। ফোরেও হাঁটার মতো জায়গা নেই। রোগীরা রীতিমতো গড়াগড়ি খাচ্ছেন। এক বেড থেকে অন্য বেডে কোনো দূরত্ব নেই। অক্সিজেন সমস্যা এতটাই প্রকট যে তা দেখে চিকিৎসকরা রীতিমতো ভয় পাচ্ছেন। একজন চিকিৎসকের ভাষায় মরুভূমিতে আপনার এক বুক পিপাসা, আর সে সময় আপনাকে বলা হচ্ছে আপনি থুথু গিলে পিপাসা নিবারণ করেন। অন্য আরেক চিকিৎসক বলছেন, পুকুর থেকে মাছ তোলার পর মাছ যেরকম ছটফট করে। অক্সিজেনের জন্য রোগীরা ঠিক সেরকমই করছেন। তিনি বলেন, ২৫ জন রোগীর জন্য নির্ধারিত একটা জায়গা। এর মধ্যে ১৮/২০টা বেডে অক্সিজেনের পোর্ট রয়েছে। একটা পোর্ট একজন মাত্র রোগীর অক্সিজেন জোগান দিতে পারে। সেখানে একশ’ জনেরও বেশি রোগী। বেশিরভাগ রোগীরই অক্সিজেন দরকার। তাও মিনিটে ১৫ লিটার করে। এমন চিত্র রাজধানীসহ সর্বত্রই। শুধু অক্সিজেন নয়, আইসিইউ এবং সাধারণ শয্যার সংকট চরম আকারে দেখা দিয়েছে হাসপাতালগুলোয়। করোনা রোগীরা হাসপাতালে সিট পাচ্ছেন না। দেশে প্রতিদিনই করোনাা রোগী বাড়ছে হু হু করে। সঙ্গে মৃত্যুর মিছিলও লম্ব^া হচ্ছে। অনেকে চিকিৎসা না পাওয়ার আগেই উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন।
মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. রিদওয়ানুর রহমান বলেছেন, প্রচুর টেস্ট করালে বর্তমানে যা শনাক্ত হচ্ছে, তার দশগুণ বেশি রোগী শনাক্ত হবে। যারা শনাক্ত হচ্ছেন না, তারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর সংক্রমণ ছড়াচ্ছেন। তিনি র‌্যাপিড টেস্ট করার পরামর্শ দিয়েছেন। এদিকে করোনা টেস্টের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দীর্ঘ লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করার চিত্র চোখে পড়েছে। কিন্তু করোনার সন্দেহভাজন অনেক রোগী পরীক্ষা করাতে পারছেন না। শত শত রোগী করোনা পরীক্ষা করাতে গিয়ে পদে পদে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন হাসপাতাল ও বুথ সেন্টারে। পরীক্ষা করাতে তিন-চারদিনও অপেক্ষা করতে হচ্ছে তাদের। খুব ভোরে এসেও পারছেন না পরীক্ষা করাতে। বিএসএমএমইউ হাসপাতালের একজন সিনিয়র মেডিকেল টেকনোলজিস্ট জানান, দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। কিট সংকট রয়েছে চরমে। ফলে ভোগান্তিতে পড়ছে মানুষ। রাজধানীর কল্যাণপুরের বাসিন্দা আনোয়ার আহমেদ। তার স্ত্রী করোনা পজিটিভ শনাক্ত হন। শনাক্ত হওয়ার পরপর সম্প্রতি রাজধানীর করোনা বা কোভিড-১৯ হাসপাতলে ভর্তি হওয়ার জন্য যোগাযোগ করেন তারা। কিন্তু কোথায়ও সিট না পেয়ে পরে ঝুঁঁকি নিয়েই বাসায় থাকেন। এখন কিছুটা সুস্থবোধ করছেন। শুধু অনোয়ার দম্পতি নয়, করোনার রোগীরা সরকারি হাসপাতালে সিট না পাওয়ার অহরহ অভিযোগ আসছে। একটি সিট পেতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাদের। হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতেই হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতালগুলো। রোগীর সংখ্যা বাড়ায় হাসপাতালে করোনার রোগীরা সিটা পাচ্ছেন না। যদিও করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত যে হাসপাতালগুলো আছে সেই হাসপাতালগুলোতে ঠাঁই নেই অবস্থা।
ওদিকে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. এএসএম লুৎফুল কবির শিমুল নিয়মিত রোগী দেখেন চট্টগ্রামের বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে। চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে তিনি আক্রান্ত হন করোনায়। বাসায় অবস্থান করে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন। কিন্তু হঠাৎ তার শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে একটি কেবিনে ভর্তি হতে অনুনয় করে ফোন করেন এবং বলেনÑকোন ডাক্তার নার্সকে সেখানে যেতে হবে না। কিন্তু পরিচালক সরাসরি জানিয়ে দিলেনÑকোন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে তিনি হাসপাতাল ভর্তি দিবেন না। পরে বাসায় একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার চেয়েছিলেন ডা. শিমুল। কিন্তু দেননি।
ডা. শিমুল আক্ষেপ করে নিজের ফেসবুক ওয়ালে লিখেন, করোনা মানুষ চিনিয়েছে, করোনার শিক্ষায় যদি বেঁচে থাকেন, গাছতলায় চেম্বার করবেন। তবুও ফেরত যাবেন না মুখোশধারী ম্যাক্স হাসপাতালের পরিচালকের কাছে।
চট্টগ্রামে নিজের হাসপাতালে একজন ডাক্তারও যখন নিজের চিকিৎসার জন্য আহাজারি করছেন, সেখানে সাধারণ মানুষের কী অবস্থা তা এ ঘটনা থেকে অনুমান করা যায়।
পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, হাসপাতালে হাসপাতালে একটি বেড ও অক্সিজেনের জন্য রোগী নিয়ে আহাজারি করছেন তাদের স্বজনরা। কিন্তু পাচ্ছেন না। হোক সে করোনা আক্রান্ত বা অন্য রোগী। আইসিইউ দূরে থাক হাসপাতালের একটি বেডই যেন সোনার হরিণ। চিকিৎসা না পেয়ে অসংখ্য ব্যক্তি মারা যাচ্ছে নিজের বাড়িতে। লবিং করে যেসব রোগী ভর্তি হচ্ছে, তারাও পরবর্তীতে লাশ হয়ে ফিরছেন।
করোনা বিশেষায়িত রাজধানীর বেসরকারি হাসপাতাল আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. এহতেশামুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, করোনা ইউনিটে রোগীদের প্রচ- চাপ। একজন ছাড় পেলে অপেক্ষারত থেকে অন্য একজনকে ভর্তি করা হচ্ছে। ডা. এহতেশামুল হক বলেন, সাধারণ ওয়ার্ডে এতদিন রোগী কিছুটা কম ছিল। কিন্তু কয়েকদিন থেকে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা। এপ্রিলে প্রকাশিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-চীন যৌথ প্রতিবেদন অনুযায়ী, করোনা আক্রান্ত পাঁচ শতাংশ রোগীর কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রয়োজন হয় এবং আরো ১৫ শতাংশের জন্য প্রয়োজন হয় ঘনীভূত অক্সিজেন। যার অর্থ ২০ শতাংশ রোগীর আইসিইউ প্রয়োজন হয়। অথচ দেশে রোগীর তুলনায় ২০ শতাংশের ধারেকাছেও নেই আইসিইও ব্যবস্থা। গত সোমবার দেয়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক হিসাবে জানা যায়, করোনা রোগীদের জন্য সারা দেশে মাত্র ৩৯৯টি আইসিইউ বেড রয়েছে। এর মধ্যে রাজধানীতে ২১৮টি, ঢাকা বিভাগে ৪৭টি, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩৪টি, ময়মনসিংহ বিভাগে ৭টি, বরিশালে ১৮টি, সিলেট ১৬টি, রাজশাহী ২৮টি, খুলনা ১৮টি, রংপুর ১৩টি। খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, দেশে প্রায় ১৮টি জেলায় কোনো ধরনের আইসিইউ নেই। আর যে পরিমাণ আইসিইউ রয়েছে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে তা মোটেও রোগীদের চাহিদা পূরণ করতে পারছে না বলে অভিযোগ করছে সংশ্লিষ্টরা। শুধু এ কারণে করোনা আক্রান্ত বেশির ভাগ রোগীই মারা যাচ্ছেন আইসিইউ’র অভাবে। অক্সিজেন না পেয়ে। তবে সরকারি হাসপাতালগুলোর বাইরে ৭৩৭টি আইসিইউ বেড রয়েছে। জানা যায়, দেশের প্রায় ৩৭টি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান প্রত্যক্ষভাবে করোনা মোকাবিলায় নিয়োজিত। এগুলোতে করোনা রোগী ছাড়া আর কারও চিকিৎসার সুযোগ নেই। এ ছাড়া সরকারি হাসপাতালগুলোর প্রায় ৫০ হাজার শয্যার মধ্যে থেকে মাত্র ৭ হাজার শয্যাকে করোনা সন্দেহভাজন রোগীদের জন্য আইসোলেশন শয্যা হিসেবে প্রস্তুত করা হয়েছে। কিন্তু এর বিপরীত গতকাল পর্যন্ত ৫৫ হাজারের ওপরে করোনা রোগীই শনাক্ত হয়েছে। তা ছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ও নার্সিং অধিদপ্তরের অধীনে চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও সহায়ক জনবলসহ ১ লাখ ৯৩ হাজার, ৬৮৭টি পদ থাকার কথা। কিন্তু প্রায় এক-পঞ্চমাংশের অধিক পদে জনবল ঘাটতি রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য মানদ- অনুযায়ী প্রতি ১০ হাজার মানুষের জন্য ৪৫ জন চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী দরকার, কিন্তু বাংলাদেশে আছে মাত্র ৯ জন। কিন্তু এর মধ্য থেকে করোনা রোগীদের জন্য আবার চিকিৎসক ভাগ হয়ে গেছে। দেশের মোট হাসপাতাল শয্যার ৬৪ শতাংশ বেসরকারি হাসপাতালের। কিন্তু করোনা সংকটে বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতের উদাসীনতা ভয়ঙ্কর বলছে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের জীবন বাঁচাতে সম্পূর্ণ কার্যকর আইসিইউ লাগবেই। আইসিইউয়ের অবিচ্ছেদ্য অংশ ভেন্টিলেটর ফুসফুসের সমস্যায় ভোগা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করে। এগুলো করোনা রোগীদের বাঁচানোর জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। কারণ, করোনা ভাইরাস শ্বাসযন্ত্রে আক্রমণ করে। অথচ দেশে ভেন্টিলেটরও নেই তেমন একটা। জানা গেছে, মাত্র ১৯০টি ভেন্টিলেটর করোনার চিকিৎসার জন্য বরাদ্দ করেছে। যার মধ্যে ঢাকাতে আছে ৭৯টি এবং বাকিগুলো দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশের বাইরে থেকে কয়েকবার ভেন্টিলেটর আনার ঘোষণা দিলেও এর কোনো অগ্রগতি দেখা যায়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত মান অনুযায়ী, কোনো দেশের হাসপাতালে রোগীর জন্য যত শয্যা থাকবে, সেগুলোর মধ্যে ১০ শতাংশ আইসিইউ থাকতে হয়। এ অনুযায়ী চিকিৎসাকেন্দ্রগুলোতে আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর থাকার কথা সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি। তবে আইসিইউ ও ভেন্টিলেটার পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষত চিকিৎসক ও নার্স প্রয়োজন। সেটিও পর্যাপ্ত নেই দেশে। ২০০৮ সালে ক্রিটিক্যাল কেয়ার কোর্স চালু হলেও এখন পর্যন্ত ক্রিটিক্যাল কেয়ারের ওপর এমডি করেছেন মাত্র ৩০ জন চিকিৎসক, যেখানে প্রয়োজন কমপক্ষে ৬০০ জন। জানা যায়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বারডেম ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে এই কোর্সটি চালু রয়েছে। চিকিৎসকের পাশাপাশি নেই ক্রিটিক্যাল কেয়ার বিষয়ে প্রশিক্ষিত কোনো নার্স নেই। দেশে ক্রিটিক্যাল কেয়ারের ওপর নার্সদের পড়াশোনার সুযোগ নেই। আইসিইউতে যেসব নার্স ক্রিটিক্যাল কেয়ার সেবা দেন, তারা মূলত দেখে দেখে কাজ শিখেছেন। শুরুর দিকে শুধুমাত্র স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইইডিসিআরের ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষা করা হলেও পরবর্তীতে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে ল্যাবরেটরির সংখ্যা বাড়তে থাকে। বর্তমানে রাজধানী ঢাকায় ২১টি এবং ঢাকার বাইরে আরো ২১টিসহ মোট ৪২টি ল্যাবরেটরিতে করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। অথচ এসব ল্যাবরেটরিতে যে পরিমাণ টেস্ট করানোর কথা সে পরিমাণ টেস্ট করানো যাচ্ছে না বলে জানা গেছে। আবার যারা নমুনা সংগ্রহ করছেন, তাদের মান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। যারা নমুনা সংগ্রহ করছেন, তাদের ঠিকমতো প্রশিক্ষণ দেয়া হয়নি। ফলে তারা ঠিকমতো নমুনা সংগ্রহ করতে পারছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। ফলে অনেক সময় টেস্টে রেজাল্ট দিতেও সময়ক্ষেপণ হচ্ছে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও মিডিয়া সেলের ফোকাল পয়েন্ট মো. হাবিবুর রহমান খান বলেন, এই সংকট দীর্ঘদিনের। এই সংকট বর্তমানে প্রকট আকার ধারণ করেছে। তবে ইতিমধ্যে আমরা কিছু চিকিৎসক নিয়োগ দিয়েছি। আরো তিন হাজার টেকনিশিয়ান নিয়োগ দেয়ার কথা ভাবছে সরকার।
প্রতিদিন হাজার তিনেক করোনা রোগী শনাক্ত হলেও এর বাস্তবিক হার অনেক বেশি বলে দাবি করছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানী বিজন কুমার শীল। তিনি বলেন, প্রতিদিনই দেশে করোনা ভাইরাসের আক্রান্তের রেকর্ড ভেঙে যাচ্ছে। আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। দেশের ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ মানুষ ইতিমধ্যেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্ত হলেও এদের অধিকাংশই বুঝতে পারেননি যে তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এ অবস্থাতে অনেক করোনা রোগী পাচ্ছেন না চিকিৎসা। হাসপাতালে ঘুরে দেখা গেছে ভেন্টিলেশন ও আইসিইওর অভাবে মারা যাচ্ছেন করোনা রোগীরা। অক্সিজেনের অভাবে চরম কষ্ট ভোগ করে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করছেন অনেকে।
নতুন যন্ত্রণা কোভিড সনদ : করোনা ভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ আছে এমন রোগীদের জন্য এখন নতুন যন্ত্রণা হচ্ছে কোভিড ও নন-কোভিড সনদ। করোনার কোনো ধরনের উপসর্গ থাক আর না থাক নেগেটিভ রিপোর্ট ছাড়া রোগী দেখছেন না চিকিৎসকরা। অন্যদিকে পজিটিভ রিপোর্ট ছাড়া করোনার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলো ভর্তি করছে না। ফলে করোনা পরীক্ষা করানোর আগেই হাসপাতালে ঘুরতে ঘুরতে মারা যাচ্ছেন রোগীরা। করোনা পরীক্ষার ক্ষেত্রেও দেখা যাচ্ছে নানা জটিলতা, বিশৃঙ্খলা। কোথায় গেলে পরীক্ষা হবে অনেকেই জানেন না। আবার দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর বলা হচ্ছে আজ হবে না। আবার কেউ পরীক্ষার সুযোগ পেলেও রিপোর্ট পেতে লাগছে পাঁচ-ছয়দিন। ফলে রিপোর্ট আসার আগেই অনেককে পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে বিনা চিকিৎসায়। এছাড়া গত মাসে সকল হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ দিলেও কেউ মানছেন না এমন নির্দেশনা। এ বিষয়ে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মালিক সমিতির সভাপতি এম এ মুবিন খান বলেন, আমি নির্দেশনাটি দেখেছি। কেউ কেউ ইতিমধ্যে চিকিৎসা দিতে শুরু করেছে। তবে যেসব হাসপাতালে পৃথক দু’টি ভবন আছে তাদের জন্য এটা সহজ হবে। না হয় একই ভবনে করোনা চিকিৎসা দেয়া ঝামেলা হয়ে যাবে। তবে সাধারণ রোগী ভর্তির ব্যাপারে তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে সবাই সাধারণ রোগী ভর্তি করাচ্ছেন। তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে বাধার সম্মুখীন হওয়ার কথা না। এই প্রতিবেদক পরিচয় গোপন করে পাঁচটি বেসরকারি হাসপাতলের হট লাইনে ফোন দিয়ে করোনা উপসর্গ রোগী ভর্তি না করানোর তথ্য পেয়েছেন। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও মিডিয়া সেলের ফোকাল পয়েন্ট মো. হাবিবুর রহমান খান বলেন, বেসরকারি হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে চিকিৎসা না দেয়ার অভিযোগ প্রায়ই শোনা যাচ্ছে। কিন্তু আমাদের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ আসেনি। আসলে আমরা ব্যবস্থা নিবো। তবে সকল হাসপাতাল তো একসঙ্গে সম্ভব নয়। ধীরে ধীরে সবাই প্রস্তুতি নিচ্ছে।




যা বলছেন বিশেষজ্ঞরা : দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, বাংলাদেশে সবচেয়ে অবহেলিত সেক্টরগুলোর মধ্যে স্বাস্থ্যখাত অন্যতম। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বেনজির আহমেদ বলেন, প্রতিটি রোগীকে কোথায় ও কীভাবে চিকিৎসা দেয়া হবে তা নিয়ে পরিকল্পনার দরকার ছিল। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে অথবা বেশি সংক্রমিত এলাকায় একইসঙ্গে চিকিৎসা দেয়ার পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি নেয়া যেত। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল না ভেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উচিত ছিল সকলকে একসঙ্গে নিয়ে কাজ করার। সংশ্লিষ্টদের অবহেলার কারণেই আজকে এই পরিস্থিতি হয়েছে। তাছাড়া সরকার এই খাতে যে পরিমাণ বাজেট বরাদ্দ করে সেটা খুবই নগণ্য। প্রচুর পরিমাণ বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও ভাইরোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, শুরু থেকেই সরকার বলে আসছে যথেষ্ট প্রস্তুতি আছে। কিন্তু বাস্তবে কি হচ্ছে আমরা কিন্তু তা দেখতেই পাচ্ছি। চিকিৎসকদের রোগীদের কাছাকাছি যেতে হয়, তাদেরকে চিকিৎসা দিতে হয়। কিন্তু চিকিসৎকরা যখন পিপিই সংকটে ভুগছিল এবং আক্রান্ত হতে শুরু করলো তখন থেকেই তারা আতঙ্কগ্রস্ত হতে শুরু করলো। সেই আতঙ্ক এখনো কাটেনি। তবে এই খাত যে পরিমাণ দলীয়করণ হয়, বা সিন্ডিকের বলয় আছে সেখান থেকে বের হয়ে আসতে হবে।






প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25099 জন