এমন দিন থাকবে না অচিরেই কেটে যাবে : প্রধানমন্ত্রী
Published : Wednesday, 3 June, 2020 at 12:00 AM, Update: 02.06.2020 9:47:41 PM
দিনকাল রিপোর্ট
প্রতিটি জেলা হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার (২ জুন) সকালে একনেক সভায় এ নির্দেশ দেন তিনি। এছাড়া স্বাস্থবিধি মেনে কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এতে ১০টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। যার খরচ ধরা হয়েছে, প্রায় ১৬ হাজার ২৭৬ কোটি ৩ লাখ টাকা। যার মধ্যে রয়েছে, ‘কোভিড নাইনটিন ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড প্যান্ডেমিক প্রি- পেয়ার্ডনেস এবং কোভিড নাইনটিন রেসপন্স ইমার্জেন্সি অ্যাসিটেন্স প্রকল্প দুটি। যা বাস্তবায়নে খরচ হবে, ২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৮৫০ কোটি বিশ্বব্যাংক ও ৮৪৯ কোটি টাকা দেবে এডিবি। বাকি অর্থ, সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে খরচ করা হবে। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে, এর আগে জরুরি বিবেচনায় প্রকল্পগুলো অনুমোদন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এদিকে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (একনেক) বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলছেন, মরণঘাতি করোনা ভাইরাসে স্থবির সকল কর্মকান্ড, যদিও স্বাভাবিক কার্যক্রম ফেরার চেষ্টা করছে সরকার। তবুও কষ্ট-দুর্ভোগের শেষ নেই মানুষের।  ‘করোনার কারণে অর্থনৈতিক গতিশীলতা কিছুটা স্থবির হয়ে গেছে। তবে এমন দিন থাকবে না। আমরা যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারবো।
অচিরেই খারাপ দিন কেটে গিয়ে সুদিন ফিরে আসার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এরকম দিন থাকবে না। আমরা যেকোনও প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারবো। সেভাবেই আমাদের সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রেখেই নিজ নিজ কর্মস্থলে কাজ করে যেতে হবে। যেন দেশের মানুষ কষ্ট না পায়। আমরা দেশের অসহায় মানুষের কথা বেশি চিন্তা করি। খেটে খাওয়া মানুষের জীবনযাত্রা যেন অব্যাহত রাখতে পারে সেই চেষ্টা করছে সরকার জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতির যে গতিশীলতা পেয়েছিল করোনা ভাইরাস আসায় স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। এটা শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বব্যাপী চলছে। আমরা চাই না দেশের মানুষ কষ্ট পাক। সেদিকে লক্ষ্য রেখে বন্ধ প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। যাতে খেটে খাওয়া, দিন এনে দিন খাওয়া মানুষ, মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত প্রত্যেকে তাদের জীবনযাত্রা যেন অব্যাহত রাখতে পারে। সেজন্যই আমরা এই পদক্ষেপ নিয়েছি। তিনি আরও বলেন, ‘করোনায় শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্ব বলতে গেলে স্থবির। সব জায়গায় এই সমস্যাটা দেখা দিয়েছে। আমরাও তার থেকে বাইরে না।
দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেটা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সেটা মেনেই আমাদের চলতে হবে। আমাদের দেশের মানুষ যেন সুরক্ষিত থাকে। মনে রাখতে হবে নিজের সুরক্ষা মানে অপরকে সুরক্ষিত করা। আমরা সবাই নিজের পরিবার এবং সহকর্মীদের সুরক্ষিত রাখতে আন্তরিকভাবে চেষ্টা করবো। এটা হবে আমাদের সিদ্ধান্ত।তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আজ অর্থনীতিতে যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছিল তাতে আমাদের আশা ছিল ২০২০ সাল বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী বা ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, বিশেষ করে লক্ষ্য ছিল এই মুজিববর্ষেই আমরা আমাদের দারিদ্র্যের হার কমিয়ে এনে বাংলাদেশকে একটা উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে একটা উচ্চতর পর্যায়ে নিয়ে যাবো।







প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25097 জন