বিভিন্নস্থানে করোনা ভাইরাসের উপসর্গে ১২ জনের মৃত্যু
Published : Thursday, 21 May, 2020 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট
করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে পরীক্ষা করাতে গিয়ে মারা গেছেন আরও একজন সাংবাদিক। গতকাল বুধবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে পরীক্ষা করতে গিয়ে অপেক্ষমাণ অবস্থায় অসুস্থ হয়ে ঢলে পড়ে যান তিনি। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মারা যাওয়া ওই সাংবাদিকের নাম এম মিজানুর রহমান খান। তিনি ‘দৈনিক বাংলাদেশের খবরের’ সিনিয়র ফটোসাংবাদিক ও বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক।
বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য ও মিজানুরের সহকর্মী শামীম আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উপস্থিত সাংবাদিকরা জানায়, গতকাল সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিজানুর গিয়েছিলেন করোনা পরীক্ষা করতে। সেখানে অপেক্ষারত অবস্থায় তিনি হঠাৎ মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে ডিআরইউতে উপস্থিত সদস্যরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত আরও দুই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার ভোর চারটার দিকে একজন এবং মঙ্গলবার (১৯ মে) রাত সাড়ে ১২টার দিকে অন্যজন মৃত্যুবরণ করেন। মৃত দুইজনের মধ্যে একজন নগরের হালিশহর এলাকার এবং অন্যজন আকবরশাহ এলাকার বাসিন্দা। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রব বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। তারা দুইজনই করোনা পজেটিভ ছিলেন। প্রসঙ্গত, এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৪ জন। এ পর্যন্ত জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৯৭২ জন। এর মধ্যে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১২৭ জন ।
চাঁদপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে মারা যাওয়া রাবেয়া বেগম (৭২) এবং তার স্বামী গণপূর্ত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবুর রহমান পাটওয়ারী করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। বুধবার তাদের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এর আগে গত ১৭ মে দু’জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠায় স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ। এদিকে জেলায় নতুন করে ১৮ জন করোনা আক্রান্ত  হয়েছেন। এ নিয়ে চাঁদপুরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৪ জনে। সকালে চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. সাখাওয়াত উল্যাহ এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, বুধবার ৮৫টি নমুনার পরীক্ষার রিপোর্ট এসেছে।
তাদের ছেলে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহকারী পরিচালক (পিআর) আনোয়ার হাবিব কাজল জানান, আমার মা সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শহরের চিত্রলেখা এলাকার বাসায় মারা যান। এরপর রাত সাড়ে ৩টায় আশিকাটি ইউনিয়নের হোসেনপুরের গ্রামের বাড়িতে দাফন করে শহরের বাসায় আসি। এর দেড় ঘন্টা পর মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে মারা গেলেন বাবাও।
তিনি বলেন, আমরা সবার কাছে দোয়া চাই। চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সাজেদা পলিন জানান, মারা যাওয়া দুইজনের ছেলে এবং নাতির করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে গত ১৩ এপ্রিল। যেহেতু তাদের পরিবারের দু’জন ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাদেরও কিছু উপসর্গ ছিল। তাই ১৭ মে তাদের নমুনা সংগ্রহ করি।
নরসিংদীতে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে সামিউন বেগম (৫০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টা ৩০ মিনিটে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তবে পরিবারের দাবি, তিনি স্ট্রোক করে মারা গেছেন। এর দুদিন আগে ওই নারীর স্বামী হাজি শরীফ হোসেন মুক্তা (৫৭) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। গত সোমবার ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। নিহত সামিউন বেগম মাধবদী পৌরসভার মেয়র মোশাররফ হোসেন মানিক ও নরসিংদী চেম্ব^ার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট আলী হোসেন শিশিরের বড় বোন। আর সামিউন বেগমএর স্বামী নরসিংদী সদর উপজেলার নুরালাপুরের বাসিন্দা। তাদের চার ছেলে সন্তান রয়েছে।
মাধবদী পৌরসভার মেয়র মোশাররফ হোসেন মানিক বলেন, ‘আমার বোনের সোমবার করোনা পরীক্ষা করানো হলে তার ফলাফল নেগেটিভ আসে। ডাক্তার বলেছে, সে রাতে স্ট্রোক করে মারা গেছে।’ বোন ও দুলাভাই হারানো যে কত কষ্টের সেটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না জানিয়ে মোশাররফ হোসেন মানিক বলেন, ‘মৃত্যুর আগে আমার বোন আমাদের সবার খোঁজ নিয়েছিল। তার সঙ্গে আমরা কেউ কথা বলতে পারিনি। ডাক্তারদের সঙ্গে কথা হয়েছে। বোনের লাশ নিয়ে কিছুক্ষণ পর আমরা বাড়ি ফিরব।’
এদিকে, সামিউন বেগমের আরেক ভাই নরসিংদী চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট আলী হোসেন শিশির বলেন, ‘আমার বোন জ্বর ও ঠান্ডার সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। ভর্তি হওয়ার পর তার জ্বর ও ঠান্ডার সমস্যা ভালো হয়ে যায় এবং করোনা পরীক্ষা করানো হলে সেই ফলাফল নেগেটিভ আসে। কিন্তু আমার বোন গরম পানি দিয়ে নাকের মাধ্যমে বেশি বেশি ভাব নিয়েছে। আর ভাব নিতে গিয়ে শ্বাসনালীতে সমস্যা হয়। এজন্য তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। পরে রাতে স্ট্রোক করে সে মারা যায়।’ এ ব্যাপারে নরসিংদী করোনা প্রতিরোধ সেলের কুইক রেসপন্স টিমের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শাহ আলম মিয়া বলেন, ‘নিহত সামিউন বেগম কিছুদিন তার স্বামীর সংস্পর্শে ছিলেন। শরীরের জ্বর ও ঠান্ডার মতো কিছু উপসর্গ ছিল। তাই সোমবার তার করোনা পরীক্ষা করানো হয়। কিন্তু পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ আসে। সে রাতেই স্ট্রোক করে মারা গেছেন ডাক্তার বলছে।’
করোনার উপসর্গ নিয়ে শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায? এক বৃদ্ধের (৫০) মৃত্য হয়েছে। তিনি গত সোমবার জ্বর, সর্দি-কাশি নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এছাড়া ওই বৃদ্ধ কিডনি ও ব্লাড প্রেসার জনিত সমস্যায় ভুগছিলেন। মঙ্গলবার রাতে মারা যান তিনি। শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. জয়ন্ত দত্ত এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মারা যাওয়া ব্যক্তির বাড়ি সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা মোগলাবাজার ইউনিয়নে।
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মৃত মৎস্য ব্যবসায়ীর শরীরে করোনার সংক্রমণ ছিল। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ আজ বুধবার সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করেন। এতে করে উপজেলায় করোনায় সংক্রমিত ৭১ জনের মধ্যে একজনের মৃত্যু হলো। এদিকে গতকাল মঙ্গলবার রাতে এক সবজি ব্যবসায়ী করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। মারা যাওয়া ব্যক্তির বাড়ি পৌর শহরের চন্ডিবের দক্ষিণপাড়ায়।
স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, ভৈরব নৈশ মৎস্য আড়তের ওই ব্যবসায়ী গত শুক্রবার রাতে মারা যান। মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগে তাকে কিশোরগঞ্জের সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার আগে তিনি এক সপ্তাহ ধরে জ্বর, সর্দি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। এদিকে গতকাল মারা যাওয়া পৌর শহরের সবজির ব্যবসায়ী এক সপ্তাহ ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নেয়ার কিছুক্ষণ পর তার মৃত্যু হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুবনা ফারজানা বলেন, গতকাল মারা যাওয়া ব্যবসায়ীকে রাত ১২টার দিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কবর দেওয়া হয়। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।
লক্ষ্মীপুরে হাঁচি, কাশি ও জ্বর নিয়ে গত ২৪ ঘন্টায় ২ কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া জেলায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ১১ জন। মৃত দুইজন হলো সদর উপজেলার বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের ইসমাইল (১৮) এবং যাদৈয়া গ্রামের জাহেদ (১৬)। এ ঘটনায় মৃতদের ও নতুন আক্রান্তদের বাড়িসহ ৩৭টি পরিবারের ২৬৫ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল গফফার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, দ্বিতীয়বারের মতো জেলায় লকডাউন চলছে। এর মধ্যেই রায়পুর উপজেলার হায়দরগঞ্জে একজন মেডিকেল সহকারীসহ আরও ১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে লক্ষ্মীপুর সদরে ৭ জন, রামগতিতে ২ ও রায়পুরে  ২ জন রয়েছেন।  তিনি বলেন, এ নিয়ে লক্ষ্মীপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১১০ জন।
কয়েকদিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন ৮২ বছরের এক বৃদ্ধা। শারীরিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় ওই নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনার উপসর্গ থাকায় নমুনাও নেয়া হয়। গতকাল বুধবার ভোর চারটার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার একটি গ্রামে নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রাজীব পালিত বলেন, গত সোমবার বিকেলে ওই বৃদ্ধাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনার উপসর্গ থাকায় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নমুনা নিয়ে ওই বৃদ্ধাকে চট্টগ্রামের হাসপাতালে পাঠানো হয়। নমুনা পরীক্ষার ফল এখনো পাওয়া যায়নি। মারা যাওয়া নারীর ছেলে  বলেন, তার মায়ের জন্ডিস হয়েছে বলে তিনি মনে করছেন। অবস্থা ভালো মনে হওয়ায় মাকে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে আনা হয়। পরে গতকাল ভোরে তিনি মারা যান।




রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের রঘুনন্দনপুর গ্রামে স্বামী-স্ত্রী ও তাদের দুই কন্যা সন্তান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তরা হলেন রঘুনন্দনপুর গ্রামের মো. রফিকুল ইসলাম (৫৫), তার স্ত্রী মনিরা খাতুন (৩৫) এবং দুই কন্যা রিফি এবং আপছা।  গতকাল বুধবার দুপুরে রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডা. নূরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আক্রান্তদের মধ্যে মো. রফিকুল ইসলাম ঢাকার উবার চালক ছিলেন।  প্রথমে রফিকুলের মাঝে করোনায় উপসর্গ লক্ষ্য করা গেলে পরিবারসহ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার নিজ গ্রামে চলে আসেন। ১৭ মে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরিবারসহ করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। গতকাল দুপুরে ফলাফল আসলে একই পরিবারের ৪ জন করোনা আক্রান্ত হয় বলে জানা যায়।
তিনি আরো বলেন, কিছুক্ষণের মধ্যেই আক্রান্তদের রাজবাড়ী সদর হাসাপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে নিয়ে এসে চিকিৎসা প্রদান করা হবে। পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, আক্রান্তদের বাড়িসহ রঘুনন্দনপুর গ্রামটি লকডাউন করা হয়েছে।






প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25066 জন