দেড় ঘন্টায় উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি পুড়ে ছাই
Published : Wednesday, 13 May, 2020 at 12:00 AM, Update: 12.05.2020 8:58:51 PM
দেড় ঘন্টায় উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি পুড়ে ছাইদিনকাল রিপোর্ট
কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ এক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে দোকানসহ ৩০০-এর বেশি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এ ঘটনায় ১০ জন রোহিঙ্গা আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে উখিয়ার লম্বাশিয়া ক্যাম্প ওয়ান ইস্টের ই-ব্লকে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তবে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উখিয়া থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম বলেন, ‘মঙ্গলবার সকালে ক্যাম্পের একটি ঘর থেকে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন লেগে ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে। এতে দোকানসহ ৩০০-এর বেশি ঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এ ঘটনায় ১০ জন রোহিঙ্গা আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তিগ্রস্তদের অন্যত্র আশ্রয় দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।’
রোহিঙ্গারা জানান, সকাল ৮টায় উখিয়ার লম্বাশিয়া ক্যাম্প ওয়ান ইস্টের ব্লক-ই একটি ঝুপড়ি ঘরে রান্না করার সময় গ্যাস সিলিন্ডার থেকে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ঘরে পাশে একটি গ্যাস সিলিন্ডার দোকানে আগুন লাগে। ফলে অল্প সময়ে ক্যাম্পের ই ব্লকে আগুন ছড়িয়ে পড়লে ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে বেশকিছু মানুষ আহত হয়েছেন। পরে স্থানীয় ও ফায়ার সার্ভিস মিলে সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ৯টার দিকে (দেড় ঘন্টায়) আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
লম্বাশিয়া ক্যাম্পের নেতা মোহাম্মদ রফিক বলেন, ‘ক্যাম্পের ব্লক-ই এর একটি ঘরের গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন লেগে ৩০০-এর বেশি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে রোহিঙ্গাদের ব্যাপক য়তি হয়েছে। আবার কিছু রোহিঙ্গা আহত হয়েছে। তবে এইটি সত্য যে, অনেক রোহিঙ্গা গ্যাসের সিলিন্ডারের ব্যবহার বিধি জানে না। তারা সবাই ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে উখিয়া কুতুপালং পাহাড়ে বসতি গড়েন। বর্তমানে সেটি বিশ্বের বড় শরণার্থী ক্যাম্প হিসেবে পরিচিত।’
উখিয়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাস্টার এমদাদুল হক বলেন, ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আনেন। গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে ধারণা করা হচ্ছে।
উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, তিগ্রস্তদের অন্যত্র থাকার ব্যবস্থা করে দেয়ার প্রস্তুতি চলছে। পুড়ে যাওয়া ঘরগুলো পুনরায় নির্মাণ করে দেয়া হবে। ক্যাম্পে যাতে পরিস্থিতি শান্ত থাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।







প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25110 জন