পবিত্র মাহে রমজান শুরু আজ
Published : Saturday, 25 April, 2020 at 12:00 AM, Update: 24.04.2020 9:32:24 PM
মাওলানা এম.এ. করিম ইবনে মছব্বির
আজ পহেলা রমজানুল মোবারক ১৪৪১ হিজরী, বছর ঘুরে ফিরে এসেছে আমাদের মাঝে রহমত, মাগফিরাত ও দোযখ থেকে নাজাতের মাস রমজান। গতকাল চাঁদ দেখা যাওয়ায় আজ থেকে বরকতের মাস রমজান শুরু। যে বরকতময় মাসে প্রিয়নবী (সা.) এর উপর অবতীর্ণ হয়েছিল সমগ্র বিশ্বের মানবজাতির একমাত্র পরিচালনার গাইড মহাগ্রন্থ আল-কোরআন। আরবী শব্দ সাওমের বহুবচন হচ্ছে সিয়াম। আভিধানিক অর্থ বিরত থাকা। আর ইসলামের পরিভাষায় এর অর্থ হচ্ছে যে, সুবহে সাদিক
থেকে শুরু করে সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে কোন রকমের পানাহার ও যৌনকর্ম থেকে বিরত থাকা। এ সম্পর্কে হাদীসে কুদসীতে ইরশাদ হয়েছে যে, আদম সন্তানের নেক আমলের প্রতিদান দশ থেকে সত্তর গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। আল্লাহ পাক বলেন, সিয়াম আমার জন্য এবং এর প্রতিদান আমি নিজেই। কেননা সিয়াম পালনকারীরা একমাত্র আমারই সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে পানাহার ও প্রবৃত্তির চাহিদা পরিত্যাগ করে থাকে।
কোরআনুল কারীমে এরশাদ হয়েছে ইয়া আইয়ুহাল্লাজিনা আমানু কুতিবা আলাইকুমুস সিয়ামু কামা কুতিবা আলাল্লাজিনা মিন কাবলিকুম তাত্তাকুন। অর্থাৎ হে ঈমানদারগণ তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে। যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর ফরজ করা হয়েছিল। যাতে তোমরা তাকওয়া বা সাবধানতা অবলম্বন করতে পার।
রমজান মাস : এ মাসে অপ্রাপ্ত বয়স্ক, রোগী, মুসাফির, পাগল, হায়েজ নেফাসসম্পন্ন মহিলা ও শারয়ী পরিভাষায় অম ব্যতীত প্রত্যেক নর-নারীর উপর রোজা পালন করা ফরজ।
রোজার নিয়ত : নাওয়াইতু আন আছুম্মা গাদাম মিন শাহরী, রামজানাল মুবারাকি, ফারদাল্লাকা ইয়া আল্লাহু ফাতাক্বাব্বাল মিন্নি ইন্নাকা আনতাস সামিউল আলীম। অর্থাৎ হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল রমজানের রোজা রাখার নিয়ত করছি। যা তোমার প থেকে ফরজ করা হয়েছে। সুতরাং আমার প থেকে তা কবুল কর। নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা সর্বজ্ঞ।
সেহরি : সেহরি খাওয়া সুন্নত। মহানবী (সা.) এরশাদ করেন যে, আমাদের এবং আহলে কিতাবের (ইহুদী-নাছারা) রোজার মধ্যে পার্থক্য হলো আমরা সেহরি খাই ওরা খায় না। তিনি আরো বলেন, তোমরা সেহরি খাও, কারণ এর মধ্যে বরকত নিহিত আছে।
সেহরির সময় : হাদীসের আলোকে জানা যায় যে, সেহরি খাওয়া রাত্রির শেষভাগেই উত্তম। হযরত যায়েদ ইবনে ছাবিত (রা.) হুজুরের জামানার কথা বলতে গিয়ে বলেন যে, আমরা মহানবীর (সা.) এর সাথে সেহরি খেয়েছি। তারপর নামাজে (ফজরের জন্য) দাঁড়িয়েছি। জিজ্ঞাসা করা হলো উভয়ের (সেহরি ও নামাজের) মধ্যে কতটুকু ব্যবধান ছিল? হযরত যায়েদ (রা.) বললেন, পঞ্চাশটি আয়াত তেলাওয়াত করতে যতটুকু সময় লাগে ততটুকু।
ইফতার : সূর্যাস্তের পরপরই ইফতার করা উত্তম। মহানবী (সা.) বলেন, মানুষ ততদিন কল্যাণের মধ্যে থাকবে, যতদিন তারা ইফতারের সময় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইফতার করে নেবে।
ইফতারের দোয়া : আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়াআলা রিযকিকা আফতারতু। অর্থাৎ হে আল্লাহ আমি তোমার নামে রোজা রাখছি এবং তোমার রিজিক দ্বারাই ইফতার করছি।
ইফতার করানোর ফজিলত :  মহানবী (সা.) এরশাদ করেন যে, যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে ইফতার করায় সে উক্ত রোজাদারের সমান ছওয়াব পায়। অথচ উক্ত রোজাদারের ভাগ হতে কিছু মাত্র কম করা হবে না।
চাঁদ দেখা গেছে আজ রোজা শুরু
রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের সওগাত নিয়ে বছর ঘুরে আবার এলো পবিত্র মাহে রমজান।  দেশের আকাশে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। মুসলমানদের সিয়াম সাধনার (রোজা) মাস পবিত্র রমজান শুরু হচ্ছে আজ শনিবার।   পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় দেশের আকাশে রমজান মাসের চাঁদ দেখা  গেছে। ফলে মুসলমানদের সিয়াম সাধনার (রোজা) মাস পবিত্র রমজান শুরু হলো আজ শনিবার (২৫ এপ্রিল) থেকে। চাঁদ দেখা যাওয়ায় আগামী ২০ মে বুধবার দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল কদর পালিত হবে। রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নুরুল ইসলাম। রমজান মাস শেষেই আসবে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। এবার ২৯ দিনেই শেষ হলো শাবান মাস। সভায় সচিব জানান, সকল জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, আবহাওয়া অধিদফতর, মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশের আকাশে হিজরি ১৪৪১ সনের রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। শনিবার (আজ) থেকে রমজান মাস শুরু হচ্ছে। আগামী ২০ মে বুধবার দিবাগত রাতে (রমজানের ২৭তম রাত) পবিত্র লাইলাতুল কদর পালিত হবে বলেও জানান তিনি।
রোজা রাখতে শেষ রাতে সেহরি খাবেন মুসলমানরা। ঢাকায় প্রথম দিন সেহরির শেষ সময় ভোর রাত ৪টা ৫ মিনিট। শুক্রবার প্রথম রোজার ইফতারের সময় ৬টা ২৮ মিনিট। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী, রমজান মাসে প্রতিটি নেক আমলের সওয়াব আল্লাহ পাক ৭০ গুণ বাড়িয়ে দেন। অপরদিকে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যে শুক্রবার থেকে রমজান শুরু হয়েছে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। তাই মসজিদে গিয়ে পাঁচ ওয়াক্ত ও জুমার নামাজের মতো তারাবির নামাজ পড়ার ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার।
ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পবিত্র রমজান মাসে এশারের জামাত ও তারাবি নামাজে ইমাম, মুয়াজ্জিন, খতিব, খাদেম ও ২ জন হাফেজসহ সর্বোচ্চ ১২ জন অংশগ্রহণ করতে পারবেন। বাকিদের এ নামাজ ঘরে বসে আদায় করতে হবে। সরকারি এই নির্দেশনা না মানলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কাছে রমজান সংযম, আত্মশুদ্ধি এবং ত্যাগের মাস। রমজান রহমত (আল্লাহর অনুগ্রহ), মাগফেরাত (ক্ষমা) ও নাজাত (দোযখের আগুন থেকে মুক্তি)- এ তিন অংশে বিভক্ত। এ মাসে সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার, স্ত্রী-সহবাস ও যে কোন ধরনের পাপ কাজ থেকে বিরত থাকার মাধ্যমে রোজা পালন করেন মুসলমানরা।
এ মাসের শেষ অংশে রয়েছে হাজারো মাসের এবাদতের চেয়েও উত্তম লাইলাতুল কদরের রাত। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী, রমজান মাসে প্রতিটি নেক আমলের সওয়াব আল্লাহ পাক ৭০ গুণ বাড়িয়ে দেন। রমজান শেষেই আসবে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর।
প্রধানমন্ত্রীর রমজানের শুভেচ্ছা
দেশবাসীকে পবিত্র রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পবিত্র এ মাসটি উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার দেওয়া এক বাণীতে তিনি দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে শুভেচ্ছা জানান।
বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস রমজানুল মোবারক পরম করুণাময় আল্লাহতাআলার বিশেষ করুণা ও দয়া লাভের উত্তম সময়। কোরআন নাজিলের মাস হিসেবে রমজান অতি ফজিলত ও তাৎপর্যপূর্ণ। মাহে রমজানের মধ্যে জাগতিক কল্যাণ ও পারলৌকিক মুক্তির বার্তা রয়েছে। এ মাসে ত্যাগ স্বীকারের মাধ্যমে আত্মার পরিশুদ্ধি ঘটে ও সর্বশক্তিমান আল্লার  নৈকট্যলাভের সুযোগ হয়।
বিএনপির শ্রভেচ্ছা
পবিত্র রমজান উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল মুসলমানকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। গতকাল শুক্রবার বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক বাণীতে তিনি এসব কথা বলেন। বানীতে বলা হয় পবিত্র মাহে রমজান সমাগত। এ পবিত্র মাস সমগ্র মুসলিম উম্মাহ’র জন্য রহমত, বরকত ও নাজাতের মাস হিসেবে সম্মানিত। তাই মুসলিম উম্মাহ পরম করুণাময় আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি লাভে নিজেদের নিয়োজিত রাখতে সচেষ্ট হন। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বের মুসলমান রমজান মাসে সিয়াম সাধনার মধ্য দিয়ে আল্লাহর নৈকট্যলাভের জন্য আত্মার পরিশুদ্ধির প্রশিক্ষণে নিয়োজিত হয়। রমজান মাসে গুণাহ বা পাপ বিমোচিত হয়, পূণ্য বা নেয়ামত বৃদ্ধি পায়। সারাদিন সকল ধরনের পানাহার থেকে মুক্ত হয়ে মোমিন মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করেন। মহান আল্লাহর অসংখ্য নেয়ামতের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি নেয়ামত হলো কোরআন মজিদ। এই রমজান মাসেই কোরআন মজিদ নাজিল হয়েছিল। তাতে রমজানের নিজস্ব ফজিলতের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে পবিত্র কোরআন মজিদের ফজিলত। হিংসা-বিভেদ, অন্যায়, জুলুম, অবিচার এবং লোভ লালসাসহ সকল ধরনের পাপকাজ থেকে বিরত থাকার এক মহান শিক্ষা দেয় মাহে রমজান। এ শিক্ষাকে বুকে ধারণ করে নিজেদেরকে পবিত্র মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে আমাদেরকে ব্রতী হতে হবে। রমজান মাস সমবেদনা ও সহযোগিতা প্রদর্শণের মাস এবং এটি সবর ও ধৈর্যের মাস। মাহে রমজানের ফজিলত ও মর্যাদা অনন্য ও অতুলনীয়। অনাচার, হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি পরিহার করে সমাজে শান্তি বজায় রাখতে সচেষ্ট থাকা প্রতিটি ধর্মপ্রাণ মুসলমানের অবশ্য কর্তব্য। বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস মহামারী রোধ করার জন্য আমাদের আল্লাহর কাছে পানাহ চাইতে হবে যাতে আর কোন মানুষের জীবনহানি না হয় এবং ঐ রোগে আর কেউ যেন আক্রান্ত না হয়। অসুস্থ করোনা রোগীদের দ্রুত সুস্থতার জন্য আমরা যেন আল্লাহর কাছে মোনাজাত করি ।  মাহে রমজান প্রতিটি মুসলমানের জীবনে বয়ে আনুক শান্তি-সুখের বার্তা, সবার জীবন হয়ে উঠুক মঙ্গলময়, মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দরবারে আমি এ প্রার্থনা জানাই।
পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে অপর এক বাণেিত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে অপর এক বাণীতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, পবিত্র রমজান উপলক্ষে আমি বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল মুসলমানদের জানাই আমার প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ। পবিত্র রমজান মাসে একজন রোজাদার মহান রাব্বুল আলামীনের নিকট করুণা ভিক্ষা করলে সন্তুষ্টচিত্তে তিনি বান্দাকে ক্ষমা করে দেন। এই পবিত্র মাহে রমজানে একজন প্রকৃত মোমিন ব্যক্তি সারাদিন সকল ক্ষেত্রে সংযমী থাকেন আল্লাহ’র নৈকট্য লাভের আশায়।




রমজান মাস হলো বরকতের মাস, কেননা মানুষের গুণাহগুলোকে দূরীভূত করে তার আত্মিক ও আধ্যাত্মিক পূর্ণতার ক্ষেত্র সৃষ্টি করে সিয়াম সাধনা। অবশ্য রোজা রাখার উদ্দেশ্যটাও পাপ থেকে বিরত থাকা, ঈমান ও তাকওয়া অর্জন করা। সুতরাং রমজান মাসের অবদান বহুমাত্রিক ও সর্বজনীন । সারা বিশ্বের মানুষ এখন ভয়ংকর ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। করোনা ভাইরাসের আক্রমণে প্রতিদিনই অসংখ্য মানুষ মৃত্যুবরণ করছে, আক্রান্ত হচ্ছে অগণিত নানা বয়েসী মানুষ। এই মরণব্যাধি থেকে বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসীকে হেফাজত করতে রমজান মাসে মহান আল্লাহর কাছে আমরা মোনাজাতই করবো।







প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25065 জন