করোনায় আরও ২১৯ আক্রান্ত : মৃত্যু ৪
Published : Thursday, 16 April, 2020 at 12:00 AM, Update: 16.04.2020 6:36:42 PM
দিনকাল রিপোর্ট
করোনায় দেশে ২৪ ঘন্টায় আরো ২১৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৩১। এ ছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় আরো চারজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। এ নিয়ে দেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫০ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন ৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৪৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা ভাইরাস সম্পর্কে নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে বাসা থেকে যুক্ত হয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ ও অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ সময় অধিদপ্তর থেকে যুক্ত হন।
আবুল কালাম আজাদ জানান, করোনা আক্রান্ত হয়ে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈনুদ্দিন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৫০ বছর।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। আজাদ জানান, প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন ডা. মাইনুদ্দিনের পরিবারের সকল দায়িত্ব সরকার গ্রহণ করবেন এবং তার পরিবারের জন্য যে স্বাস্থ্য বীমা সরকার ঘোষণা করেছিল, তাও শিগগিরই তা কার্যকর হবে বলে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন। তিনি জানান, দুই পুত্র সন্তানের জনক ডাক্তার মাইনুদ্দিনের স্ত্রীও একজন চিকিৎসক। তার নাম ডা. রিফাত জামান। করোনার প্রকোপ প্রতিরোধ করতে হলে করোনা টেস্টিং আরও বৃদ্ধি করার বিকল্প নেই বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেছেন, করোনা লক্ষণ দেখা দিলে মানুষকে তা না লুকিয়ে বেশি বেশি টেস্ট করতে হবে। টেস্টিং কিটস সরকারের হাতে পর্যাপ্ত রয়েছে। আরও কিটস আনা হচ্ছে। মন্ত্রী আরও বলেন, টেস্টিং বৃদ্ধি করা গেলে আক্রান্ত মানুষগুলো শনাক্ত হবে ও ভাইরাসটি বেশি ছড়াতে পারবে না। এক্ষেত্রে তথ্য না লুকিয়ে সবাইকে করোনা টেস্ট করতে এগিয়ে আসতে হবে।
তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই ১৪ হাজার ৮৬৮টি পরীক্ষা করা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭৪০টি পরীক্ষা হয়েছে। এদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন আরও ২১৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ও ৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। করোনা রোগী শনাক্ত করতে এই পরীক্ষা সংখ্যা আরও অনেক বেশি বৃদ্ধি করতে হবে। গতকাল বুধবার দুপুরে নিজ বাসা থেকে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন আপডেট তথ্য প্রচার অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, নতুন ৪ জন মৃত ব্যক্তির মধ্যে একজন ছিলেন চিকিৎসক। করোনায় মৃত চিকিৎসকের তথ্য বলতে গিয়ে মন্ত্রী আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। মৃত চিকিৎসককে নিজের ভাইয়ের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে একজন সম্ভাবনাময় চিকিৎসকের মৃত্যু ভীষণ কষ্টের। তার মৃত্যু আমার নিজের ভাইয়ের মৃত্যুসম কষ্টের। তার মৃত্যুতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ গোটা দেশবাসী কষ্ট পেয়েছেন ও তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী তার বক্তব্যে মৃত চিকিৎসকের রূহের মাগফেরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। ব্রিফিংয়ে উপস্থিত স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত অবস্থায় একজন স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন ও প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত অনুদান যত দ্রুততম সময়ে মৃত চিকিৎসকের পরিবারের কাছে পৌঁছে দেয়ার কথা জানান। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অনলাইন ভিডিও প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।
ডা. মঈন উদ্দীনের মৃত্যুতে বিএনপির শোক
সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বুধবার সকাল ৬-৪৫ মিনিটে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।




বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত শোক বার্তায় বলা হয়, গতকাল এক শোকবার্তায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, “বিশ^ব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে লক্ষাধিক মানুষের জীবনহানী ও কয়েক লক্ষ মানুষের আক্রান্ত হওয়ার এই বিভিষিকাময় পরিস্থিতিতে মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন রোগীদের সেবায় নিজের জীবন উৎসর্গ করে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তা নজীরবিহীন। আজ বিশ^ব্যাপী এই মহামারিতে বাংলাদেশও যেন অন্তহীন শোকের দেশে পরিণত হচ্ছে। এই মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ডা. মঈনের প্রবল সাহস ও গভীর নিবিষ্টতা সকলের কাছে এক গর্বিত প্রেরণা। জীবনবিধ্বংসী করোনা ভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবে ডা. মঈন নিজের জীবন দিয়ে সর্বোচ্চ যে ত্যাগ স্বীকার করলেন তা মানবতার ইতিহাসের উজ্জল অধ্যায় হয়ে থাকবে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবায় ডা. মঈনের এই ধরণের আত্মদানে একটি জাতির মধ্যে আত্মমর্যাদা, সম্ভ্রম ও মহৎভাব জেগে ওঠে। শোক ও বেদনায় স্তব্ধ পৃথিবীতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে কোন ডাক্তারের এটিই প্রথম মৃত্যু। এই মানবিক চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন এর মর্মান্তিক মৃত্যুতে তার পরিবার-পরিজনদেরকে আমি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।
আমি মরহুম ডা. মঈন উদ্দীন এর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকার্ত পরিবারবর্গ, গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি জানাচ্ছি গভীর সমবেদনা।সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এক শোকবার্তায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, “অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীনের মতো একজন মানবিক ডাক্তারের মৃত্যুতে আমি গভীরভাবে শোকাহত। আমি তার পরিবার-পরিজন ও নিকটজনদের সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। নিজে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত ডা. মঈন উদ্দীন রোগীদের সেবার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা চিকিৎসক সমাজের জন্য এক অনুকরণীয় শিক্ষা হিসেবে পরিগণিত হবে। বিশ^ব্যাপী করোনাভাইরাসের ছোবলে বাংলাদেশও আক্রান্ত। এই মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তার এই অবিস্মরণীয় আত্মদান জাতি কোনদিনই বিস্মৃত হবে না। ডা. মঈন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পিছু হটেননি, তিনি নির্ভয়ে রোগীদের সেবা করেছেন। মানবসেবাকেই ডা. মঈন জীবনে অঙ্গীভুত করেছিলেন বলেই রোগীদের সেবা করতে গিয়ে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সুতরাং এই মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ডা. মঈন একজন বীর হিসেবেই জাতির নিকট বিবেচিত হবেন। আমি অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীনের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারবর্গ, নিকটজন ও শুভাকাক্সক্ষীদের প্রতি জানাচ্ছি গভীর সমবেদনা।






প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25093 জন