সরকারি ত্রাণ যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের বাড়িতে : রিজভী
Published : Saturday, 11 April, 2020 at 12:00 AM, Update: 10.04.2020 9:41:32 PM
সরকারি ত্রাণ যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের বাড়িতে : রিজভীদিনকাল রিপোর্ট
করোনা ভাইরাস সংকট থেকে দেশের মানুষ যাতে দ্রুত বেরিয়ে আসতে পারে, সে জন্য নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ) ও ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)। এ ল্েয বর্ধিত আকারে কর্মতৎপরতা শুরু করেছে উভয় সংগঠন। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় রাজধানীর হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ও অন্যদের জন্য ব্যক্তিগত সুরা সরঞ্জাম (পিপিই) প্রদান করেছে জেডআরএফ ও ড্যাব। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এ সময় তিনি বলেন, মতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অবহেলায় স্বাস্থ্য খাতে চরম সংকট বিরাজ করছে।  মতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অবহেলায় স্বাস্থ্য খাতে চরম সংকট বিরাজ করছে। করোনাভাইরাসের সংক্রামণে মহাদুযোর্গের সরকারি ত্রাণ মতাসীনদের বাড়িতে বাড়িতে যাচ্ছে।  আমরা কোনো মন্ত্রীর কথা শুনেছি যে মানুষের পাশে থাকো। সরকারি রিলিফের ত্রাণগুলো চলে যাচ্ছে তাদের নেতা-কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে। তারা(মতাসীন দল) নেতা-কর্মীদেরকে বলছেন যে, মানুষের পাশে থাকবে। আর সরকারি ত্রাণ চলে যাচ্ছে তাদের বাড়িতে। বিএনপির রাজনীতি যারা বিশ্বাস করে তারা এটা কোনোদিন করবে না। আজকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে নেতা-কর্মীরা এই দুযোর্গের মধ্যেও যতটুকু তাদের প্র্রকোটেকশন- এটা নিয়ে তারা সামগ্রিকভাবে কাজ করছে। আমরা শত নির্যাতনের মধ্যেও মানুষের প,ে মানবতার পে দাঁড়িয়েছি।
গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় রাজধানীর হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কমৃরত চিকিৎসক ও নার্সদের ব্যক্তিগত সুরা সরঞ্জাম (পিপিই) প্রদানকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ) ও ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) উদ্যোগে পিপিই সরঞ্জাম প্রদান করা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস সংকট থেকে দেশের মানুষ যাতে দ্রুত বেরিয়ে আসতে পারে, সে জন্য নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সংগঠন দুটি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রিজভী। এ সময় তিনি বলেন, সারা দেশবাসী এখন বৈশ্বিক মহামারি করোনার ভয়ে ভীত এবং মারাত্মক সংকটের মধ্যে রয়েছে। পরীতিদের মধ্যে করোনা রোগী শনাক্তকরণের হার প্রতিদিনই আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে। ঢাকাসহ সারাদেশের ২০ জেলায় এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের থাবা ল করা গেছে। এই সংকট মোকাবিলায় আমাদের জাতীয় ঐক্য দরকার। রিজভী বলেন, গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় (বৃহস্পতিবার) দেশের ১০ জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন কমপে ১৫ জন। এমন হিসাব প্রায় প্রতিদিনের। সত্যিকারার্থে জনস্বাস্থ্য নিয়ে এ সরকার কিছুই করেনি। সরকারের মন্ত্রীদের মুখে দেশে উন্নয়নের জোয়ারের খবরে এতদিন দেশ ভেসে গেছে! তাহলে স্বাস্থ্য খাতের এত বেহাল দশা কেন? হাসপাতালে নেই কোনো আধুনিক সরঞ্জামাদি। পরীা করতে নেই সামগ্রী, রোগ ডায়ালাইসিসের কোনো ব্যবস্থা নেই, তেমন কোনো আইসিইউ নেই, ১৭ কোটি মানুষের জন্য ভেন্টিলেটর আছে মাত্র ১৭০০। হাসপাতালে চিকিৎসক নেই, নার্স নেই। হাসপাতালে ঘুরতে ঘুরতে চিকিৎসা না পেয়ে মারা গেছে ঢাবি শিার্থীসহ অসংখ্য মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে মানুষের বর্তমানে বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, যখন থেকে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়েছে, সরকার তখন থেকেই কোনো পদপে নেয়নি বলেই মেডিকেল সেক্টরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না। সরকারের অবহেলার কারণেই স্বাস্থ্য খাতে চরম সংকট বিরাজ করছে। এই সংকটের মধ্যেও অনেক চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মী নিবেদিতভাবে কাজ করছেন। তাদের ধন্যবাদ জানাই। যার যার অবস্থানে থেকে সবাইকে সচেতনভাবে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। রিজভী বলেন, আমাদের এই দরিদ্র দেশে এ মুহূর্তে দৈনিক আয়ের ওপর নির্ভরশীল কোটি কোটি মানুষ এখন কর্মহীন। চাল-ডাল জোগাড় করতে তারা যদি সামাজিক দূরত্বের দেয়াল ভেঙে বেরিয়ে আসেন, সংক্রমণ প্রতিরোধ তখন অসম্ভব হয়ে পড়বে। কারণ ুধার আক্রমণ করোনার চেয়েও ভয়ঙ্কর। তাই রাষ্ট্রের প থেকে ওইসব জনগোষ্ঠীর জন্য আপদকালীন সহযোগিতাই পারে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে। এ ল্েয ইতিমধ্যে বিএনপি বেশ কিছু প্রস্তাবনা জাতির সামনে পেশ করেছে। অনুষ্ঠানের আয়োজকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও দেশনায়ক তারেক রহমান প্রবাসে। কিন্তু ইতিমধ্যেই তিনি আপনাদের এবং সর্বস্তরের দলীয় নেতাকর্মীদের এই মহামারি মোকাবিলায় ঝাঁপিয়ে পড়তে নির্দেশ দিয়েছেন। আজকে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন এবং ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) যৌথভাবে তার ডাকে সাড়া দিয়ে হটলাইনের মাধ্যমে চিকিৎসা পরামর্শ দিতে শুরু করেছে। আপনাদের নির্বাহী পরিচালক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার এ মুহূর্তে অসুস্থ। এ অবস্থায়ও বাকি সহকর্মীরা মিলে বর্তমানে চলমান কর্মসূচিকে আপনারা বর্ধিত আকারে বেগবান করে যাচ্ছেন। বিএনপি তথা মহামারি আক্রান্ত জাতির প থেকে আপনাদের কৃতজ্ঞতা জানাই এবং আপনাদের সফলতা কামনা করি। সবাইকে এই মহামারি মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধভাবে সহযোগিতা করার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানাই। এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারামুক্তিতে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানিয়ে তাঁর আশু রোগমুক্তি কামনা করেন রিজভী।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডক্টরস অ্যাসোসিশেয়ন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশিদ, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুস সালাম, জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের (জেডআরএফ) আহমেদ শফিকুল হায়দার পারভেজ, অধ্যাপক ড. মো. মোর্শেদ হাসান খান, ডা. শাহ মুহাম্মদ আমান উল্লাহ্, প্রকৌশলী মাহবুব, ব্যারিস্টার মীর হেলাল, অধ্যাপক ড. আব্দুল করিম, অ্যামট্যাবের বিপ্লবুজ্জামান বিপ্লব, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ শাখা ছাত্রদলের ডা. রাকিবুল ইসলাম আকাশ, আতিকুর রহমান রিমন, বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান ছাড়াও হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের ডেপুটি ডিরেক্টর ডা. এনামুলসহ চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট তারেক রহমানের পরামর্শে এ কার্যক্রমে নানাভাবে সম্পৃক্ত থেকে সহযোগিতা করছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা এবং বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ শাখা ছাত্রদল। উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে তিগ্রস্তদের মধ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণের পাশাপাশি করোনা-সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো পরামর্শ এবং প্রাথমিক জরুরি স্বাস্থ্যসেবার জন্য ২৪ ঘন্টার মোবাইল হটলাইন চালু করেছে জেডআরএফ ও ড্যাব। রোগের ধরন বুঝে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সঙ্গে ফোনে সংযুক্ত করার পাশাপাশি সমস্যা জেনে টেলিফোনেই রোগীকে প্রেসক্রিপশন দেয়া এবং মূল্য পরিশোধ সাপেে রোগীর চাহিদা অনুযায়ী ওষুধ বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য একটি টিম বিনামূল্যে সেবাদানে নিয়োজিত আছে। এছাড়া দেশের প্রায় সব বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরতদের জন্য ব্যক্তিগত সুরা সরঞ্জাম বা পিপিই প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন ও ড্যাব।












প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25152 জন