স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান বাতিল
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক ॥ বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতি ও উ™ভূত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা
Published : Sunday, 22 March, 2020 at 12:00 AM, Update: 21.03.2020 11:21:24 PM
দিনকাল রিপোর্ট
স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান বাতিলবিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসের কারণে ঝুঁকির কথা বিবেচনায় নিয়ে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের সব অনুষ্ঠান বাতিল করেছে সরকার। এছাড়া স্বাধীনতা পুরস্কার প্রদানও স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎকালে এই সিদ্ধান্ত হয়। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব বলেন, ‘বৈঠকে বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস)-এর প্রাদুর্ভাবের কারণে স্বাধীনতা দিবসের সব অনুষ্ঠান বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।’ সচিব বলেন, ‘এ বছর ২৬ মার্চ জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, বঙ্গভবনে বিশিষ্টজনকে অভ্যর্থনা এবং স্বাধীনতা দিবসের পদক বিতরণ অনুষ্ঠান হবে না।’ জয়নাল আবেদীন বলেন, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি এবং এই মহামারি মোকাবেলায় প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রপতি প্রায় এক ঘন্টা ধরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। তারা দুজনেই দেশবাসীকে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। এ সময় প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।
এর আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ডাকা সংসদের বিশেষ অধিবেশনও স্থগিত করেন রাষ্ট্রপতি। এছাড়া ২৯ মার্চ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং দুটি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মুজিববর্ষ উপলক্ষে জাতীয় সংসদের ২২ ও ২৪ মার্চ দুই বিশেষ অধিবেশন ডাকেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ২২ মার্চ বেলা ১১টায় অধিবেশন বসার কথা ছিল। অধিবেশনের আগে সকাল সাড়ে ৯টায় সংসদ সদস্যদের ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করার কথা ছিল। এরপর অধিবেশনের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর ওপর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভাষণ দেয়ার কথা। এছাড়া কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭-এর আওতায় বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের ওপর সংসদ সদস্যরা সাধারণ আলোচনায় অংশ নেয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করায় স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে আপাতত সংসদের বিশেষ অধিবেশন স্থগিত করা হয়।
দেশে করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে আরও ৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪ জনে। আর বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর সংখ্যা ১২ হাজারের কাছাকাছি। বাংলাদেশে ১৪ হাজার মানুষ রয়েছেন হোম কোয়ারেন্টিনে। আর প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫০ জন বলে জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।
 

 





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

করোনা মোকাবিলায় দলমত নির্বিশেষে সকলকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। আপনি কি সমর্থন করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
25174 জন